সুপ্রিম কোর্টে আইনজীবীদের হাতাহাতি, ভাঙচুর

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী ডা. জুবাইদা রহমানকে দুদকের মামলায় সাজা দেওয়ার জেরে উত্তপ্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতি, ধস্তাধস্তি, ভাঙচুর ও উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ের ঘটনা ঘটেছে। একপর্যায়ে সুপ্রিম কোর্ট বার সভাপতি ও সম্পাদকের কক্ষ ভাঙচুর করা হয়।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট বারের দক্ষিণ হলে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। এ সময় রায় প্রত্যাখ্যান করে তারা বলেন, সরকারের নির্দেশিত রায় পড়েছেন বিচারক।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলেন, ‘দুদক সরকারের আজ্ঞাবহ প্রতিষ্ঠান হিসেবে তারেক রহমান ও জুবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে এ মামলা করে। মাত্র ১৬ দিনে ৪২ জনের সাক্ষ্য নিয়ে দ্রুততার সঙ্গে রায় দিয়েছেন বিচারক। সরকারের নির্দেশিত হয়ে বিচারক এ রায় দিয়েছেন। আমরা এই রায় ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করছি।’
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার এম. মাহবুব উদ্দিন খোকন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
বিএনপির সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে সরকারদলীয় আইনজীবীরা হলে প্রবেশ করে রায়ের পক্ষে স্লোগান দেন। এ সময় দু’পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে সরকারদলীয় আইনজীবীরা সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের দোতলায় সমিতির সভাপতি ও সম্পাদকের কক্ষের সামনে অবস্থান নিয়ে রায়ের পক্ষে ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের উদ্দেশ্যে স্লোগান দিতে থাকেন।
সংবাদ সম্মেলন শেষ করে বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা মিছিল করে সেখানে জড়ো হলে দু’পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় তাদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়, ধস্তাধস্তি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।
এ সময় বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মোমতাজ উদ্দিন ফকির ও সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুন নূর দুলারের নামে কক্ষের সামনে থাকা নামফলক তুলে ফেলেন। কিছু সময় পর সভাপতি ও সম্পাদকের কক্ষের পেছনে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়। কক্ষের জানালার কাচ ও বাইরে থাকা আসবাব ভাঙচুর করা হয়।
একপর্যায়ে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এর কিছুক্ষণ পর বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা বার ভবনের নিচে এবং সরকারপন্থী আইনজীবীরা দোতলায় অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন।

 

Lab Scan