সাত মাস কারাবাসের পরও তিনি ইউপি সদস্য!

0

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)সংবাদদাতা॥ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সদস্য মিজানুর রহমান মিজান কারাগারে থাকায় সাত মাস ধরে ইউনিয়ন পরিষদের সভায় অনুপস্থিত রয়েছেন। তারপরও টিকে আছে তার ইউপি সদস্যপদ। পরিষদ হতে এখনও পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ২০২২ সালের ১১ নভেম্বর ফতেপুর ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান মিজান একটি হত্যা মামলায় আটক হয়ে প্রায় সাত মাস ধরে কারাগারে আছেন। ইউনিয়ন পরিষদে ইমিধ্যে ৫/৬টি সভা অতিবাহিত হলেও কোন সভায় তার উপস্থিতি নেই। আইন অনুযায়ী কোন সদস্য পরপর ৩টি সভায় অনুপস্থিত থাকলে পরিষদ তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবেন। কিন্তু ইউপি সদস্য মিজান গত ৫/৬টি সভায় অনুপস্থিত থাকলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এ বিষয়ে ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম হায়দার লান্টু বলেন, তার অনুপস্থিতিতে স্থানীয় মহিলা সদস্য তার কাজ করে দিচ্ছেন। তার কাজে আমিও সহযোগিতা করছি। আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কিনা- এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে আলোচনা করেছি। তিনি প্রতিবেদন দেয়ার জন্যে বলেছেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার নয়ন কুমার রাজবংশী বলেন, বিষয়টি তিনি জানতে পেরেছেন। স্থানীয় চেয়ারম্যানকে লিখিতভাবে প্রতিবেদন দেয়ার জন্যে বলা হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে হত্যা মামলার বাদিপক্ষ ইউনিয়ন পরিষদ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় হতাশা ব্যক্ত করেছেন।
ইউপি সচিব আব্দুল খালেক বলেন, ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান জেল হাজতে থাকার কারণে তিনি পরিষদের সভায় হাজির হতে পারেননি।
অভিযোগে জানা যায়, ইউপি সদস্য মিজান তার ক্যাডার বাহিনী দিয়ে সুলতান নামে একজনকে গাছে বেঁধে নির্যাতন করে হত্যা করেন। ওই ঘটনায় মহেশপুর থানায় মিজান মেম্বারসহ ১০/১২ জনকে আসামি করে নিহতের ভাই ফরিদ একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার নং-১১(৮)২২।

 

 

Lab Scan