সাতক্ষীরায় ৭ দিনের লকডাউন, সংক্রমণ ৫৫ শতাংশ

0

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা॥ মহামারী করোনাভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের পর এবার সাত দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন। বৃহস্পতিবার সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, এক সপ্তাহ ধরে জেলায় করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার গড়ে ৩৫ শতাংশে ওঠানামা করছে। সবশেষ বুধবার জেলায় সংক্রমণের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৫ শতাংশে। ফলে সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। তিনি আরো জানান, শনিবার ভোর থেকে শুক্রবার মধ্যরাত পর্যন্ত চলবে এই লকডাউন। কেন ও কীভাবে তৈরি হয় করোনাভাইরাসের ভ্যারিয়্যান্ট, কতোটা ক্ষতিকর? করোনাভাইরাসের ভারতীয় ধরনটি আসলে ঠিক কী? চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হঠাৎ বাড়লো কেন
লকডাউন চলাকালীন সময়ে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দোকানপাট সকাল ৯টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত খোলা থাকবে বলে জানানো হয়েছে। এই সময়ের পর জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হওয়া যাবে না। তবে ওষুধের দোকান ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখা যাবে। এ ছাড়া জরুরি ওষুধ কেনার ক্ষেত্রে কিংবা চিকিৎসা নিতে বের হওয়া যাবে। সেক্ষেত্রে চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র দেখাতে হবে। মূলত অ্যাম্বুলেন্স, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য, এবং আমসহ খাদ্যপণ্যের পরিবহন লকডাউনের আওতার বাইরে থাকবে। শুক্রবার লকডাউনের বিধিনিষেধ কার্যকর করতে যাবতীয় প্রস্তুতি নেয়া হবে বলে জানান এস এম মোস্তফা কামাল। লকডাউন কার্যকর করতে উপজেলা থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রচার প্রচারণা চালানো হচ্ছে। এস এম মোস্তফা কামালের মতে, সাতক্ষীরার সীমান্তবর্তী ইউনিয়নগুলো অরক্ষিত থাকার কারণে, মানুষের অবাধ চলাচল ও চোরাচালানের কারণে সংক্রমণ বেড়ে গেছে। তবে লকডাউনের ফলে পরিস্থিতির উন্নয়ন হবে বলে তিনি আশা করছেন। এর আগে, জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি সাতক্ষীরাসহ সাতটি জেলায় লকডাউনের প্রস্তাব দিয়েছিল। চাপাইনবাবগঞ্জে এরইমধ্যে লকডাউন কার্যকর করা হয়েছে।
সূত্র : বিবিসি

Lab Scan