সাংসদেরা বকাউল্লাহ, ক্ষমতাসীনরা শোনাউল্লাহ, সংসদ গরিবউল্লাহ: মেনন

গ্যাসের দাম নিয়ে জাতীয় সংসদে আলোচনা করার জন্য নোটিশ দিয়েও কোনো সাড়া না পাওয়ায় ােভ প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। তিনি বলেছেন, সাংসদেরা হচ্ছেন বকাউল্লাহ তারা বকে যান, মতাসীনরা শোনাউল্লাহ, শুনে যান। আর সংসদ হচ্ছে গরিবউল্লাহ। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের বৈঠকে অনির্ধারিত আলোচনায় রাশেদ খান মেনন এ কথা বলেন। সাবেক মন্ত্রী মেনন মনে করেন, গ্যাসের দাম নিয়ে আলোচনা না হলে এই সংসদ আরও গরিব হয়ে যাবে।
গ্যাসের দাম বাড়ানোয় ােভ প্রকাশ করে গত রোববার সংসদে বক্তব্য দিয়েছিলেন রাশেদ খান মেনন। গ্যাসের দাম নিয়ে সংসদে আলোচনার জন্য তিনি কার্যপ্রণালি বিধির ৬৮ ধারায় নোটিশ দিয়েছিলেন। মেননের নোটিশ নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। নোটিশ গৃহীত হয়েছে না বাতিল হয়েছে তাও মেননকে জানানো হয়নি। এ কারণে তিনি ােভ প্রকাশ করেন। রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘রুলস অব প্রসিডিউরে আছে, সুতরাং এটা সম্পর্কে জানার অধিকার আমার আছে। অবশ্য আমাদের সংসদ সদস্য মইন উদ্দীন খান বাদল আমাকে বলছিলেন, খামকা এটা নিয়ে ইনসিস্ট করে লাভ নেই। কারণ আমরা হচ্ছি বকাউল্লাহ আর ওনারা শোনাউল্লাহ আর এই সংসদ হচ্ছে গরিবউল্লাহ।’স্পিকারের উদ্দেশে মেনন বলেন, ‘যদি এই আলোচনাটা না হয় তাহলে সংসদ আরও গরিব হবে বলে আমার ধারণা। আমি এ ব্যাপারে আপনার বক্তব্য চাচ্ছি।’
মেননের বক্তব্যের জবাবে বৈঠকের সভাপতি ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, ‘মাননীয় সদস্য আপনারা শুধু বকাউল্লাহ বকাই নন, আর আমরা শোনাউল্লাহ শোনাই নই, আপনারা বক্তব্য রাখেন সে বিষয়ে কিন্তু সরকার কার্যকরী পদপে গ্রহণ করেন। আপনার ৬৮ বিধির নোটিশটি, আমি সেদিনও বলেছি, এটা মাননীয় স্পিকারের বিবেচনাধীন আছে। বিবেচনা করা হবে না, এমনতো কোনো কথা নেই। বিষয়টি আমরা আপনাকে পরে অবহিত করব।’ গত রোববার মেনন সংসদে বলেছিলেন, গ্যাসের দাম নিয়ে সংসদে আলোচনার জন্য তিনি ৬৮ বিধিতে একটি নোটিশ দিয়েছেন। হাসানুল হক ইনু, মইন উদ্দীন খান বাদল, ফজলে হোসেন বাদশা, মোস্তফা লুৎফুল্লাহ এবং লুৎফননেসা খান তার নোটিশে সমর্থন করেছেন।

ভাগ