‘সরকারের কারসাজিতে খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত রায়’

সরকারের কারসাজির কারণে ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও ৭ আসনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা নিয়ে হাইকোর্ট দ্বিধাবিভক্ত আদেশ দিয়েছেন বলে দাবি করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ‘এটা সুস্পষ্ট যে, এর পেছনে সরকার কলকাঠি নাড়ছে, তা না হলে দ্বিধাবিভক্ত রায় কেন? এতে সরকারের কারসাজি আছে।’ মঙ্গলবার (১১ ডিসেম্বর) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা নিয়ে রায় ঘোষণার পর এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি, দেশের যেকোনও জায়গা থেকে খালেদা জিয়া আর শেখ হাসিনা নির্বাচন করবেন, খালেদা জিয়া যে ভোট পাবেন, শেখ হাসিনা তার এক-তৃতীয়াংশ ভোটও পাবেন না। তাই তাকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখতে সরকারের এই কৌশল।’
এখনও খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়টি বিচারাধীন। দেখি শেষ অবস্থা কোথায় যায় বলেও যোগ করেন রিজভী। প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে গুজব, অপপ্রচার ও কুৎসা রটানোর জন্য দেশের জনপ্রিয় মিডিয়াগুলোর নামে ফেক ওয়েবসাইট খোলা হয়েছে বলে অভিযোগ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘বিবিসি বাংলা, প্রথম আলো, বাংলা ট্রিবিউনসহ বেশকিছু বহুল পঠিত অনলাইনগুলোর নামে এই ভুয়া ওয়েবসাইট খোলা হয়েছে।’
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের দুই-একজন কর্মকর্তা কাটপিস, ছবি এডিট করে, বিভিন্ন ভুয়া ভিডিও বানিয়ে নিজেদের আইডিতে শেয়ার করেন বলেও অভিযোগ করেন রিজভী। বলেন, ‘আধুনিক প্রযুক্তিকে বিকৃতভাবে ব্যবহার করছে এই শাসকগোষ্ঠী।’ নির্বাচনি প্রতীক বরাদ্দের পর প্রচারণায় বিএনপির নেতাকর্মীদের ওপর সশস্ত্র আক্রমণ শুরু করেছে আওয়ামী সন্ত্রাসী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বলেও অভিযোগ করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন স্থানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থীদের প্রচারণার গাড়ি, মাইক ভাঙচুর এবং দলের কার্যালয়ে হামলা করেছে।’

ভাগ