সমাধান করলো গরুই!

0

পাইকগাছা (খুলনা) সংবাদদাতা॥ এক গরু নিজের বলে দাবি করছিলেন দুই ইউনিয়নের দুই জন। এ নিয়ে সালিশে বসতে হয় দুই ইউপি চেয়ারম্যানকে। দুই জনের কেউ যখন নিজেদের মধ্যে মীমাংসায় আসতে পারছিলেন না, তখন সিদ্ধান্ত হয় গরুই জানাবে তার মালিক কে।  শেষ পর্যন্ত গরুটিই বেছে নেয় তার প্রকৃত পালনকর্তাকে। এ ঘটনা খুলনার পাইকগাছা উপজেলার।
স্থানীয়রা জানান, উপজেলার লস্কর খড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক দীপক মন্ডল ও গড়ইখালী শান্তা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সুদর্শন মন্ডল দুই জন একই গরুর মালিকানা দাবি করছিলেন।
সুদর্শন বলেন, তার গরুটি ৭ দিন আগে হরিয়ে যায়। সেটি তিনি দীপক মন্ডলের বাড়িতে দেখেছেন। অন্যদিকে দীপক মন্ডল বলেন, আমার গরু আমার বাড়িতেই আছে। সেটি অন্য কারো নয়।
এনিয়ে দুপক্ষের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। তাদের নিয়ে সালিশে বসেন গড়ইখালী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম কেরু ও লস্কর ইউপি চেয়ারম্যান কে এম আরিফুজ্জামান তুহিন। দু’ পক্ষই দাবিতে অটল থাকায় সিদ্ধান্ত হয় গরুর বিচার গরু করবে। সে অনুযায়ী শনিবার সন্ধ্যায় দুই ইউনিয়নের মধ্যবর্তী খড়িয়া মিনহাজ ওয়াপদা এলাকায় গরুটি ছেড়ে দেয়া হয়। এরপর ওই গরু চলে যায় দীপক মাস্টারের বাড়িতে।
এ ব্যাপরে চেয়ারম্যান জিএম আব্দুস ছালাম কেরু ও কেএম আরিফুজ্জামান তুহিন বলেন, গরুর সালিশ গরুই করছে। যেহেতু গরুটি স্বেচ্ছায় দীপক মাস্টারের গোয়ালে গিয়ে উঠেছে, ফলে সেটি তারই। সুদর্শন মন্ডলের চুরি যাওয়া গরু নয়। একই রকম দেখতে হওয়ায় তিনি দীপক মাস্টারের গরুকে তার বলে দাবি করছিলেন।

 

Lab Scan