শোকাবহ ৯ শিশু শিক্ষার্থীকে হারানোর দিন আজ

এম. এ রহিম চৌগাছা (যশোর) ॥ আজ ১৫ ফেব্র“য়ারি যশোরের চৌগাছা ট্রাজেডি দিবস। প্রতিবছর এই দিনটি এ অঞ্চলের মানুষ চৌগাছা ট্রাজেডি দিবস হিসেবে পালন করছেন। ২০১৪ সালের এই দিনে মর্মান্তিক পিকনিকের বাস দুর্ঘটনায় বেনাপোল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৯ শিশু শিার্থী নিহত হয়। চৌগাছা-মহেশপুর সড়কের ঝাউতলা বাজার নামক স্থানে এ দুর্ঘটনায় আরও শিার্থী, শিক, অভিভাবকসহ অর্ধশতাধিক আহত হন। ওই বছর থেকে জেলার মধ্যেই শিক্ষা সফরে যাওয়ার নির্দেশনা জারি করা হয়।
২০১৪ সালের এই দিনে শার্শা উপজেলার বেনাপোল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা শিাসফরে মেহেরপুরের মুজিবনগরে যায়। সেখান থেকে ফেরার পথে চৌগাছার ঝাউতলা বাজার নামক স্থানে বাসটি রাস্তার পাশে একটি পুকুরে পড়ে যায়। ঘটনাস্থলে নিহত হয় ৭ জন শিশু শিার্থী। আহত হন আরো ৭০ জন শিশু শিার্থীসহ ৪ জন শিক। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে আরও ২ শিার্থী।
দুর্ঘটনায় নিহতরা হলো, বেনাপোল পৌরসভার ছোটআঁচড়া গ্রামের সৈয়দ আলীর দুই মেয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী সুরাইয়া (১০) ও তার বোন তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী জেবা আক্তার (৮), একই গ্রামের ইউনুস আলীর মেয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী মিথিলা আক্তার (১০), রফিকুল ইসলামের মেয়ে চতুর্থ শেণির ছাত্রী রুনা আক্তার মীম (৯), লোকমান হোসেনের ছেলে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র শান্ত (৯), গাজিপুর গ্রামের সেকেন্দার আলীর ছেলে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র সাব্বির হোসেন (১০) ও নামাজ গ্রামের হাসান আলীর মেয়ে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী আঁখি (১১), ছোটআঁচড়া গ্রামের মনির হোসেনের ছেলে পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র ইকরামুল (১১), একই গ্রামের ইদ্রিস আলীর ছেলে পঞ্চম শ্রেণির শিার্থী ইয়ানুর রহমান (১১)। আজো কান্না থামেনি হারিয়ে যাওয়া এসব শিশুর পরিবারে। এই দিনটি স্মরণে আজ চৌগাছা ও শার্শা উপজেলার বিভিন্ন সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কালো পতাকা উত্তোলন, শোকর‌্যালি ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

ভাগ