শৈলকুপায় হত্যা চেষ্টার আসামিরা প্রকাশ্যে : ভয়ে বাড়ি ছাড়া বাদী

0

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহ ॥ ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলায় এক গার্মেন্ট কর্মীকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ করা হয়েছে। এ ঘটনায় শৈলকুপা থানায় মামলা হলেও আসামিরা প্রকাশ্যে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে।
মামলা এজাহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ধাওড়া গ্রামের আব্দুল মালেক জোয়ার্দ্দারের ছেলে আবুল কালাম আজাদ দীর্ঘদিন   চাকরি করার সুবাদে ঢাকায়  ছিলেন । এই সুযোগে তার পৈত্রিক সম্পত্তি বেদখল করেন তার আপন ভাই ও শরিকরা। চার মাস আগে তিনি চাকরি ছেড়ে স্থায়ীভাবে নিজ গ্রামে বসবাস করছেন। বাড়ি এসে পাকা ঘর তৈরি করতে চাইলে বাধা দেন মামলার প্রধান আসামি মো. শহিদুল, মো. ওহিদুল, বর্ষা খাতুন, মো.মাজেদুল, মো. মফিজুল. মালা খাতুন, বৃষ্টি খাতুন ও আলো জোয়ার্দ্দর। বাড়ি নির্মাণে বাধা পেয়ে তিনি গ্রামের মাতুব্বরদের ডেকে ঘটনাটি মীমাংসা করে নেন। এরপর বাড়ি তৈরি করে বসবাস শুরু করেন। গত ৭ আবুল কালাম আজাদ নিজ ঘরসংলগ্ন সবজি আবাদের জন্য জমি প্রস্তুত করছিলেন।
এ সময় আসামি শহিদুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার, মো.ওহিদুল, মো. মাজেদুল, মালা খাতুন, বৃষ্টি খাতুন ও বর্ষা খাতুন জোটবদ্ধ হয়ে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে তাকে হত্যার চেষ্টা চালায়। মৃত ভেবে আসামিরা ফেলে চলে গেলে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে আবুল কালাম আজাদকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। গত ১৫ মে আবুল কালাম আজাদ আদালতে নালিশী দরখাস্ত দাখিল করেন। বিচারক নালিশী দরখাস্তটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করে তিন কার্যদিবসের মধ্যে আদালতকে অবগত করার নির্দেশ প্রদান করেন। আদালতের নির্দেশ পেয়ে শৈলকুপা থানার ওসি আমিনুল ইসলাম গত ২১ মে মামলাটি রেকর্ড করেন।
এদিকে মামলা রেকর্ড করলেও এখনও আসামিরা অধরাই রয়ে গেছে। আসামিরা বাদীর বাড়ি গিয়ে প্রতিনিয়ত হত্যার হুমকি দিচ্ছে। ফলে বাদী মামলা করে এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন। বিষয়টি নিয়ে শৈলকুপা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) ঠাকুর দাস মন্ডল জানান, মামলা যখন রেকর্ড হয়েছে তখন আসামিরা রেহাই পাবে না।

 

Lab Scan