শৈলকুপায় কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা মানবশক্তি ফাউন্ডেশন

0

মফিজুল ইসলাম, শৈলকুপা(ঝিনাইদহ)॥ ঝিনাইদহের শৈলকুপা থেকে মানবশক্তি ফাউন্ডেশন নামের একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মীরা গ্রাহকের প্রায় কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা হয়েছে। সংস্থার কার্যালয় ঝিনাইদহের শৈলকুপার উমেদপুর ইউনিয়নের গাড়াগঞ্জ এলাকার গাড়াখোলা গ্রামে।
সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার গাড়াখোলা এলাকায় অবস্থিত মানবশক্তি ফাউন্ডেশনের দফতরে সাইনবোর্ড ঝুলছে। ভবনের প্রধান ফটক তালাবদ্ধ অবস্থায় রয়েছে। ভবনের সাথে রয়েছে রেজিস্ট্রেশন নম্বরসহ একটি সাইনবোর্ড, নেই অফিসের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও বাড়ির মালিক। প্রতারকচক্ররা ২ সপ্তাহ আগে এই বাড়ির কয়েকটি কক্ষ ভাড়া নেয় বলে জানান এলাকাবাসী। এ ভবনের মালিক শাহিনুর বেগম ওই গ্রামের বাসিন্দা।
সহজশর্তে ঋণ নিতে গিয়ে প্রতারিত হওয়া শৈলকুপা পৌর এলাকার উত্তরপাড়া গ্রামের গিয়াসউদ্দিন জানান, মানবশক্তি ফাউন্ডেশনের ম্যানেজার সায়েম আহমেদ ও ফিল্ড অফিসার রাজু আহমেদ গত মাসের ১৬ তারিখে তাদের কাচে যান। এসে তারা সহজ শর্তে ঋণ দেয়ার কথা সবাইকে বলেন। ঋণ নিতে লাখে ১০ হাজার টাকা জামানত ছাড়া আর কোন শর্ত লাগবে না। যে বাড়িতে অফিস সে বাড়ির মালিক শাহীনুর তাদের আশ^স্ত করেন তার বোন জামাই এ প্রতিষ্ঠানের বড় কর্মকর্তা। এ বিশ^াসে তিনিসহ ১৫ ব্যক্তি কাগজপত্রের ভোগান্তি না থাকায় ১০ হাজার টাকা করে সঞ্চয় জমা করেন। সোমবার তাদের ঋণ দেয়ার কথা। কিন্তু ঋণ আনতে গিয়ে দেখি এনজিওসহ বাড়ির মালিক পলাতক। ফুলহরী, ভাটই, কবিরপুর, ২নং মির্জাপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামসহ উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ঋণ দেয়ার নামে তারা গ্রাহকের কাছ থেকে কয়েকদিনে কোটি টাকার টাকা নিয়ে লাপাত্তা হয়েছে বলে জানান। মঙ্গলবার দুপুরে তারা এনজিও অফিসের বাড়ির মালিকসহ কথিত এনজিও কর্মকর্তাদের নামে শৈলকুপা থানায় অভিযোগ দিয়েছেন বলে জানান গিয়াস উদ্দিন।
ফুলহরী গ্রামের আজাদ হোসেন বলেন, তার চাচাতো ভাই মিল্টনসহ ৩০/৩৫ জন গাড়াগঞ্জের গাড়াখোলা গ্রামে মানবশক্তি ফাউন্ডেশন নামের একটি এনজিও প্রতিষ্ঠানে লোন নেয়ার জন্য প্রত্যেকে ২০ হাজার টাকা করে সঞ্চয় জমা করেন। গত সোমবার ৫৫ ব্যক্তির এক থেকে দুই লাখ টাকা লোন দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু রোববার রাতে বাড়ির মালিকসহ এনজিওটি উধাও হয়ে যায়।
গাড়াখোলা গ্রামের আব্দুল জলিল জানান, গত কয়েকদিন আগে তার প্রতিবেশী শাহীনুরের বাসায় মানবশক্তি নামের একটি এনজিও’র সাইনবোর্ড দেখা যায়। সোমবারে অর্ধশতাধিক ব্যক্তি এই এনজিও থেকে লোন নিতে এসে দেখে তারা পালিয়ে গেছে। তবে বাড়ির মালিক কোথায় আছে তা তিনি বলতে পারেন না।
শৈলকুপা উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি শামীম হোসেন মোল্যা জানান, গাড়াগঞ্জ এলাকা থেকে মানব শক্তি ফাউন্ডেশন নামের একটি এনজিও লোন দেয়ার নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে ১০/৩৫ হাজার টাকা পর্যন্ত সঞ্চয় নিয়ে উধাও হয়েছে।
শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, সাধারণ মানুষের সঞ্চয় নিয়ে এনজিও লাপাত্তার অভিযোগ নিয়ে কোন ব্যক্তি অভিযোগ করেননি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কানিজ ফাতেমা লিজা জানান, মানবশক্তি ফাউন্ডেশন নামের এনজিও সম্পর্কে তার জানা নেই। তার দপ্তরে এনজিওটি নিয়ে কোন ব্যক্তি অভিযোগও করেননি।

Lab Scan