শিশু ধর্ষণের অভিযোগে ট্রাক চালক আটক

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোরের বাঘারপাড়ায় শিশুছাত্রীকে হাত-মুখ বেঁধে ধর্ষণ করার অভিযোগে আটক হয়েছে অহিদুল ইসলাম অহিদ নামে এক ট্রাকচালক। তাকে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেছে। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় শিশুটিকে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ধর্ষিতা বাঘারপাড়া খলশী সরকারি প্রাইমারী স্কুলের ২য় শ্রেণির ছাত্রী। তার বাড়ি ওই গ্রামে। শিশুর স্বজনরা জানিয়েছেন, গত বুধবার সকাল ৯টার দিকে দু’শিশু বইপত্র নিয়ে স্কুলে যাচ্ছিল। এ সময় রাস্তার পাশে বাড়ির মালিক ট্রাক ড্রাইভার অহিদুল ইসলাম ও শিশুটিকে মিষ্টি খেতে টাকা দেয়ার কথা বলে ঘরের ভেতর নিয়ে যায় এবং গামছা দিয়ে হাত ও মুখ বেধে ধর্ষণ করে। এ সময় ধর্ষিতার পিতা মাঠ থেকে বাড়ি ফেরার পথে মানুষের কান্নার শব্দ শুনতে পান। স্বজনরা জানিয়েছেন, কান্না শুনে পিতার সন্দেহ হয়। তখন বাড়ির ভেতর গিয়ে দরজা খুলে দেখতে পান তার শিশুকন্যাকে নরপিচাশ অহিদ ধর্ষণ করছে। এ অবস্থায় ধর্ষককে গণধোলাই দিয়ে স্থানীয় ইউপি মেম্বর মনিরুল ইসলাম সরদারের কাছে দেন। তখন মনিরুল ইসলামের হাত থেকে ধর্ষক অহিদ পালিয়ে যায়। পরে বাঘারপাড়া থানা পুলিশ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে। এরপর স্থানীয় লোকজন অহিদকে ধরে পুলিশের হাতে সোপর্দ করেন এবং মামলা দায়েরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে ধর্ষিতা শিশু ছাত্রীকে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরীক্ষা নিরীক্ষার ধর্ষণের প্রমাণ মিলেছে বলে হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছেন। আটককৃত অহিদকে আদালতে সোপর্দ করা হলে বিজ্ঞ বিচারক তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন। ধর্ষক অহিদের পূর্বের বাড়ি ফরিদপুরে। ৩ বছর আগে বাঘারপাড়ার খলশী গ্রামে জমি কিনে বসবাস করে। ঘটনার সময় স্বজনরা তার বাড়িতে ছিল না।

Lab Scan