শরণখোলায় জামিনে এসে বাদীকে হুমকি দেওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন

0

শরণখোলা (বাগেরহাট) সংবাদদাতা ॥ শরণখোলায় জমির বিরোধে কুপিয়ে পা ও কান বিচ্ছিন্ন করা মামলার আসামি জামিনে মুক্তি পেয়ে বাদী ও সাক্ষীদের হুমকি দিচ্ছে। এর প্রতিবাদে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার সুন্দরবন সংলগ্ন শরণখোলা গ্রামের এমাদুল হক খানের বাড়ির সামনে মানববন্ধনে দুই শতাধিক নারী পুরুষ অংশগ্রহণ করেন।
শরণখোলা থানায় দায়েরকৃত মামলার এজাহার ও মানববন্ধনে ভুক্তভোগীদের অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার শরণখোলা গ্রামের এমাদুল হক খানের সাথে প্রতিবেশী আব্দুর রহমান ও মোস্তফা হাওলাদার গংয়ের দীর্ঘদিন জমি নিয়ে শত্রুতা চলে আসছিলো। এরই জের ধরে গত ৩১ ডিসেম্বর রাতে আব্দুর রহমান,মোস্তফা ও সরোয়ার তাদের লোকদের নিয়ে এমাদুল হক খানকে তার বাড়ির সামনের রাস্তায় এলোপাথাড়ি কুপিয়ে পা ও কান শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে। গুরুতর জখম এমাদুল হক এখন ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় গত ১ জানুয়ারি শরণখোলা থানায় ৫ জনকে আসামি করে একটি হত্যা চেষ্টার মামলা দায়ের করা হয়। প্রধান আসামি রহমানসহ তিনজন কারাগারে রয়েছেন। কিন্তু এজাহারনামীয় আসামি মোস্তফা খাঁ ও হেলাল খাঁ জামিনে মুক্তি পেয়ে বাড়িতে এসে মামলার বাদী, সাক্ষীসহ স্থানীয় অনেককে হত্যার হুমকি দিচ্ছে।
মামলার বাদী রিয়াদুল খান জানান, তার ছোট ভাই এমাদুল হককে কুপিয়ে জখম করা আসামি হেলাল খাঁ ও মোস্তফা খাঁ জামিনে বাড়ি এসে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিচ্ছে এবং সাক্ষীরা যাতে সাক্ষী না দেয় সে জন্যও তাদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।
মানববন্ধনে উপস্থিত ইউপি সদস্য বাচ্চু মুন্সি জানান,আসামি রহমান ও মোস্তফা গং আগে সুন্দরবনে দস্যুতায় যুক্ত ছিলো । তাদের দস্যুতার ভয়ে এলাকাবাসী এখনও ভীত। তারা মানুষ খুন জখম করতে দ্বিধাবোধ করে না। এমাদুল হককে হত্যার উদ্দেশ্যে কুপিয়ে জখম করেছে তারা।

Lab Scan