শরণখোলায় আগুনে পুড়ল ১৫ দোকান

0

 

শরণখোলা (বাগেরহাট) সংবাদদাতা॥ বাগেরহাটের শরণখোলায় একটি মার্কেটে আগুন লেগে ১৫টি দোকান পুড়ে গেছে। বুধবার দিবাগত রাত ৪ টার দিকে উপজেলা সদরের পাঁচরাস্তা বাদল চত্বর মোড়ে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। আগুনে দোকানের মালামাল ও অবকাঠামোসহ প্রায় তিন কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী ও ঘর মালিকরা দাবি করেছেন। স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের শরণখোলা ও মোরেলগঞ্জের দুটি ইউনিট স্থানীয়দের সহযোগিতায় প্রায় দুই ঘন্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণ আসে। ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে হাওলাদার ফার্মেসি মালিক মো. মাইনুল ইসলাম টুকু জানান, আগুনে তার দোকানের ওষুধ ও ঘরসহ প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। রিপা টেলিকমের মালিক ও বিকাশ এজেন্ট মো. শফিকুল ইসলাম জানান, নগদ টাকাসহ তার প্রায় ২২ লাখ টাকার মালামাল পুড়ে গেছে। খোকন তালুকদার জানান, তার কনফেকশনারী দোকানের প্রায় ২০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। মার্কেটেরে মালিক মো. শফিকুল ইসলাম খোকন ও সাইয়েদ খান জানান, তাদের মার্কেটে ওষুধের ফার্মেসি, মুদি, ইলেক্ট্ররিক্স, ভেটেরিনারি ফার্মেসি, কনফেকশনারি, খাবার দোকানসহ মোট ২৫টির মতো দোকান রয়েছে। এর মধ্যে ১৫টি দোকান পুড়ে গেছে। আগুনে মালামাল ও অবকাঠামোসহ তাদের প্রায় তিন কোটি কাটার ক্ষতি হয়েছে। শরণখোলা ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আফতাব-ই আলম বলেন, রাত আনুমানিক ৩টার দিকে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিকের মাধ্যমে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। আমরা রাত সাড়ে ৩টার দিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালাই। পরে মোরেগঞ্জ উপজেলা থেকে ফায়ার সার্ভিসের আরো একটি টিম এসে আগুন নেভাতে সহায়তা করে। দুই টিমের ২০ জন সদস্য এবং স্থানীয় কয়েক শ লোকের প্রচেষ্টায় প্রায় দুই ঘন্টার পর আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আসে। শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নূর-ই আলম সিদ্দিকী বলেন, আগুনে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা তৈরি করেছি। ক্ষতিগ্রস্তরা যাতে সরকারি সহায়তা পান সেজন্য তালিকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হবে।

 

Lab Scan