শয্যাশায়ী স্বেচ্ছাসেবক দল নেতাও বাস পোড়ানো মামলার আসামি

0

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পা ভেঙে নিজ বাড়িতে শয্যাশায়ী হয়েও পুলিশের দায়ের করা কথিত নাশকতা মামলায় আসামি হলেন,যশোর জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আলী হায়দার রানা। গেল ১৫ অক্টোবর দুর্ঘটনার শিকার হয়ে ডান পা ভেঙে যাওয়ার পর থেকে তিনি এখনও নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন। গত শুক্রবার কোতয়ালি থানা পুলিশের দায়ের করা মামলায় তাকে আসামি করা হয়েছে।
আলী হায়দার রানা জানান, অক্টোবর মাসের ১৫ তারিখ শহরের ধর্মতলা এলাকার নিজ বাস ভবনের সিঁড়ি থেকে পড়ে তার ডান পা ভেঙে যায়। তাৎক্ষণিক স্বজনরা তাকে যশোর- ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখান থেকে তাকে ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই হাসপাতালে তার প্রয়োজনীয় চিকিৎসা না মেলায় তাকে পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা। ওই হাসপাতালে ২৩ অক্টোবর তার ডান পায়ে অস্ত্রোপচার করেন চিকিৎসকরা। অস্ত্রোপচার করে পায়ের ভাঙা স্থানে প্লেট লাগানো হয়। তিনি ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ওই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। এরপর চিকিৎসকদের পরামর্শক্রমে তিনি নিজ বাসভবনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে শহরের মণিহার এলাকায় দুর্বৃত্তদের আগুনে একটি বিআরটিসির বাস পুড়ে যায়। সেই ঘটনায় কোতয়ালি থানা পুলিশ কেন্দ্রীয় বিএনপির খুলনা বিভাগীয় (ভারপ্রাপ্ত) সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিতসহ দলের ৩৫ জন নেতাকর্মীর নামে মামলা দায়ের করে। এই মামলায় আলী হায়দার রানাকে ১৯ নম্বর আসামি করা হয়।
এ বিষয় জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা আমির ফয়সাল বলেন, সরকারি দলের নেতাকর্মীরা পরিকল্পিত ভাবে এমন ঘটনা ঘটিয়েছে, পুলিশ বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের নামে মামলা দিয়েছে। আলী হায়দার রানা পা ভেঙে নিজগৃহে চিকিৎসাধীন, তিনি হাঁটা চলা করতে পারেন না। এ থেকে প্রতীয়মান সম্পূর্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে প্রণোদিত ভাবে পুলিশ প্রকৃত আসামিদের আঁড়াল করতে বিএনপি নেতাকর্মীদের নামে মামলা দিয়েছে।

Lab Scan