রামপালে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ব্যাংক কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত

0

 

রামপাল (বাগরহাট) সংবাদদাতা ॥ বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের সাবেক শাখা ব্যবস্থাপক হামিমা সুলতানাকে প্রায় দুই কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযাগে চাকুরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গত ২৩ মে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকর মহাব্যবস্থাপক দিপংকর রায় স্বাক্ষরিত এক পত্রে এই আদশ দেয়া হয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপক রামপাল সদর ইউনিয়নের ঝনঝনিয়া গ্রামের বাসিন্দা হামিমা সুলতানা শাখা ব্যবস্থাপকের দায়িত্ব পালনকালে বিভিন্ন সমিতির সঞ্চয়, ঋণের কিস্তি, ভুয়া ঋণ, বিতরণকৃত ঋণ থেকে আত্মসাৎ, কর্মচারীদের বেতনের টাকা উত্তালন করে আত্মসাতসহ সর্বমাট ১ কোটি ৮৩ লাখ ২৮ হাজার ৮৩০ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। সম্প্রতি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের এক নিরীক্ষা প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। অর্থ আত্মসাতের দায়ে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রবিধানমালা ২০১৬ এর ৪৪ ১ বিধি অনুযায়ী ব্যাংকের মহাব্যবস্থাপক দিপংকর রায় গত ২৩ মে’২০২২, স্মারক নম্বর পসব্য/প্রকা/ প্রশা-২২/(২৫০)/২০২১-২২/৩৫১৭ মোতাবেক তাকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেন।
এদিকে অভিযুক্ত হামিমা সুলতানা তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযাগ অস্বীকার করে বলেন. ‘আমাকে শত্রুতামূলকভাবে সমস্যায় ফেলে দেয়া হয়েছে। ১ কোটি ৬০ লাখ টাকার লোন দিয়েছি। মল্লিকেরবেড় এলাকায় রেদোয়ান মারুফ নামের একজনকে ১ লাখ টাকা লোন দিয়েছি। ২০১৭ সালে আমি কর্মকর্তা-কর্মচাীদের বেতন আত্মসাৎ করেছি এ কথা সঠিক নয়। আমি বেতন না দিলে তারা এতদিন আমাকে ছাড় দিতো না। আমার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মামলার জবাব দিয়েছি। আগামী মাসে শুনানি হবে। দেখা যাক কি হয়।’
এ ব্যাপারে উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কবীর হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি তদন্তাধীন আছে। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোন মন্তব্য করা ঠিক হবে না।’

 

Lab Scan