রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের দুই কর্মকর্তাসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মো. আশিকুজ্জামান ও এএসআই মো. ইমরান হোসেনসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে  রোববার (১৮ জুন) আদালতে মামলা করেছেন শফিকুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি।
শফিকুল ইসলামের ছেলে ছুরিকাঘাতে জখম হলে অভিযুক্তকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছিলেন স্থানীয়রা। সেই অভিযুক্তকে পুলিশ ছেড়ে দেওয়াসহ শফিকুল ইসলামকে খুন ও গুমের হুমকির অভিযোগে আদালতে মামলা করা হয়েছে। অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ আহমেদ অভিযোগের তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পিবিআইকে আদেশ দিয়েছেন।
মামলার অপর আসামি হলেন, মণিরামপুর উপজেলার রতনদিয়া গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে মুরাদ হোসেন। এছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ৩/৪ জনকে আসামি করা হয়েছে।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, মণিরামপুর উপজেলার গৌরীপুর গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে হাসিবুর রহমান গত ১২ জন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে গ্রামের একটি চায়ের দোকান থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে গৌরীপুর কাদেরের দোকানের মোড়ে পৌঁছালে আসামি মুরাদের সাথে তার ধাক্কা লাগে। এ সময় মুরাদ ও তার অজ্ঞাতনামা সঙ্গীরা ক্ষিপ্ত হয়ে হাসিবুরকে মারধর করেন। এক পর্যায়ে হাসিবুরের পেটে ছুরিকাঘাত করেন মুরাদ। হাসিবুর রক্তাক্ত জখম হলে এবং তার চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে অভিযুক্ত মুরাদকে ছুরিসহ হাতেনাতে আটক করেন। পরে খবর দেওয়া হলে রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই মো. আশিকুজ্জামান ও এএসআই মো. ইমরান হোসেন ঘটনাস্থলে আসেন। স্থানীয় জনগণ এ সময় আটক মুরাদকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন। কিন্তু পরবর্তীতে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তাদ্বয় আসামি মুরাদকে রক্ষার জন্য তাকে ছেড়ে দেন। সেই সাথে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তাদ্বয় মামলা করলে অথবা এ নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে হাসিবুরের পিতা শফিকুল ইসলামকে খুন করে লাশ গুমের হুমকি দেন। এ কারণে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন শফিকুল ইসলাম।

 

 

Lab Scan