রাজগঞ্জে ফের চুরির হিড়িক

0

ওসমান গণি, রাজগঞ্জ (যশোর)॥ যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ অঞ্চলে সম্প্রতি বাসা-বাড়িতে চুরির হিড়িক পড়েছে। ইজিবাইক, নগদ টাকা, মোবাইল ফোন, ব্যাটারি চালিতভ্যান, হালের বলদ, নগদ টাকা, বাইসাইকেল, পানির মোটর, স্কেভেটরের ব্যাটারি, স্বর্ণালংকারসহ বিভিন্ন মালামাল চুরি হচ্ছে। রাতে স্থানীয় পুলিশের কোন টহল না থাকায় হঠাৎ করে গ্রামাঞ্চলে চুরি বেড়ে গেছে অভিযোগ উঠেছে।
গত ২০জুন গভীর রাতে রাজগঞ্জ কলেজপাড়া গ্রামের মৃত অবেদ আলী গাজীর ছেলে আব্দুল গাজীর একটি ব্যাটারিচালিত ভ্যান, ২২ জুন গভীর রাতে মৃত সোবহান আলী গাজীর ছেলে আজিজুর রহমানের একটি ব্যাটারিচালিত ভ্যান, ২৩ জুন একই গ্রামের জাকাত আলী গাজী নামের খুবই অসহায় ব্যক্তির একটি ব্যাটারিচালিত ভ্যান, তার দুই ছেলের দুইটি বাইসাইকেল, ২৪ জুন সন্ধ্যার সময় রাজগঞ্জ চৌরাস্তা মোড় থেকে হানুয়ার গ্রামের হ্নদয় হোসেনের একটি বাইসাইকেল চুরি যায়।
এছাড়া ঝাঁপা ইউনিয়নের হানুয়ার মানিকগঞ্জ গ্রামের আবুল হোসেন খাঁনের ছেলে প্রবাসী ইউনুস আলীর একটি নতুন ইজিবাইক, নগদ ১৩ হাজার টাকা ও একটি দামি মোবাইল ফোন চুরি হয়। এ ঘটনা রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশকে জানানো হলেও এখনও পর্যন্ত উদ্ধার করা যায়নি চুরিকৃত মালামাল। এদিকে মাত্র ৫ দিনের ব্যবধানে পরপর বেশ কয়েকটি চুরির ঘটনায় জনমনে আতংক বিরাজ করছে।
গত ১০ মে গভীর রাতে উপজেলার চালুয়াহাটি ইউনিয়নের রামনাথপুর গ্রামের আব্দুল ওয়াদুদের বাড়ি থেকে পানির মোটর চুরি হয়। একই রাতে ওই গ্রামের রজব আলী সরদারের একটি হালের বলদ চুরি হয়। এছাড়া ডাক্তার আলমের বাড়ি থেকে স্বর্ণালংকারসহ দামি জিনিসপত্র চুরি হয়।
একই রাতে রামনাথপুর গ্রামে থাকা একটি স্কেভেটরের ব্যাটারি চুরি হয়। ঝাঁপা ইউনিয়নের চন্ডিপুর গ্রামের বরকত আলীর একটি হালের বলদ ও গফুর মিস্ত্রির একটি হালের বলদ চুরি হয়। ঈদকে সামনে রেখে একই রাতে তিন ব্যক্তির তিনটি হালের বলদ চুরি হওয়ায় আতংকিত হয়ে পড়েছেন সাধারণ কৃষক।
তাই গরু চুরি ঠেকাতে কৃষকরা রাত জেগে নিজের গরু পাহারা দিচ্ছেন। মাত্র ৫দিনের ব্যবধানে পরপর ৭টি চুরির ঘটনা ঘটলেও স্থানীয় পুলিশের তেমন কোন তৎপরতা দেখা যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো।
ক্ষতিগ্রস্ত জাকাত আলী জানান, এনজিও থেকে লোন নিয়ে বহু কষ্টে একটি ব্যাটারিচালিত ভ্যান তৈরি করেছিলাম। এই ভ্যান চালিয়ে চলত তার ৫ জনের সংসার। কিন্তু ভ্যানটি চুরি হয়ে যাওয়ায় এখন পরিবার- পরিজন নিয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করতে হচ্ছে তার।
এ ব্যাপারে কথা হয় রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ পরিদর্শক (ইনচার্জ) বানী ইসরাইলের সাথে। তিনি জানান, চোর ধরার জন্যে ইতোমধ্যে পুলিশ মাঠে নেমেছে। তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে চোর শনাক্তের কাজ চলছে।

Lab Scan