যশোর বিএনপির সমাবেশে শামসুজ্জামান দুদু: কত ধানে কত চাল বুঝা যাবে নিরপেক্ষ সরকারের অধিনে নির্বাচন দিলে

0

মাসুদ রানা বাবু ॥ যশোর জেলা বিএনপি আয়োজিত মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের আলোচনা সভায় দলের ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, আওয়ামী লীগ ৩০ লাখ শহীদ আর ২ লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমের সাথে বেঈমানি করেছে। যে দেশে স্বাধীনতার ঘোষকের পরিবারের সদস্যদের নির্বাসিত জীবন-যাপন করতে হয় সেই দেশের জনগণ স্বাধীনতার সুফল কতটা ভোগ করছে সেটি বুঝতে বাকি থাকে না। আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধের কথা বলে। মুক্তিযুদ্ধের কার কতটুকু অবদান সেটি জনগণ জানে।
রোববার জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। সামসুজ্জামান দুদু আরও বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান যে দিন স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে নিজের ও পরিবারের জীবন ঝুঁকির মধ্যে ফেলে রণাঙ্গণে অস্ত্র কাঁধে নিয়ে যুদ্ধ করেছিলেন সেদিন তার স্ত্রী, দুই শিশুপুত্র ক্যান্টনমেন্টে পাকবাহিনীর হাতে বন্দি ছিলেন। জনগণ এই বিষয়টি যেমন জানে, তেমনি জানে কারা সেদিন পাকিস্তানিদের জীবনকে নিরাপদ রেখেছিলেন। আওয়ামী লীগ জিয়াউর রহমানকে নিয়ে নানাভাবে বিষোদগার করে। কারণ তারা জিয়াউর রহমানের জনপ্রিয়তাকে ভয় পায়। জিয়াউর রহমান ও বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কথা বলা মানেই মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে কথা বলা। অনির্বাচিত ফখরুদ্দিন-মঈনুদ্দিনের অপকর্মকে এই আওয়ামী লীগ সরকার বৈধতা দিয়েছে। যারা সংবিধানকে পদদলিত করলো, তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেই। যত কথা বেগম খালেদা জিয়া, তারেক রহমানকে নিয়ে। তিনি সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, কত ধানে কত চাল, সেট বোঝা যাবে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিলে বিদেশের দরজা বন্ধ হয়ে গেছে। জনগণ পালানোর সুযোগ দেবে না। সকল অন্যায়, অপকর্মের বিচার হবে। জনগণ সে দিনের অপেক্ষায় চেয়ে আছে। আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় দলের খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত বলেন, স্বাধীনতার ৫০ বছর পর বিচারপ্রাপ্তির নিশ্চয়তা নেই বলে অভাগা পিতা আর মেয়ে হত্যার বিচার চান না। জনগণকে ভোট ও ভাতের অধিকারের জন্যে লড়াই-সংগ্রাম করতে হয়। মুক্তিযোদ্ধাদের যেভাবে নিজের জীবন দিয়ে দেশকে পাক হানাদার মুক্ত করে গেছেন, সেভাবে আমরাও জীবনের বিনিময় হলেও বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে জগদ্দল পাথরের হাত থেকে দেশ ও জনগণকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ।
এছাড়াও বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাড. সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু। জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকনের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মফিকুল হাসান তৃপ্তি, শার্শা উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুজ্জামান মধু, সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী আজম, জেলা মহিলা দলের যুগ্ম সম্পাদক শামসুন্নাহার পান্না, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আনছারুল হক রানা, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি এস এম মিজানুর রহমান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা আমির ফয়সাল, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাপ্পি প্রমুখ। আলোচনা সভা পরিচালনা করেন সাবেক যুবদল নেতা মনিরুজ্জামান মাসুম ও সাবেক ছাত্রনেতা মাসুজ্জামান। পরে জাসাস জেলা শাখার আয়োজনে গণসঙ্গীত পরিবেশিত হয়।

 

Lab Scan