যশোর জেলা বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটির সভা ২০ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর জেলা বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটির সভা আগামী ২০ এপ্রিল পর্যন্ত মুলতবি করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টায় যশোর শহরের লালদিঘিপাড়ায় বিএনপি কার্যালয়ে সভা শুরু হয়ে চলে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। জেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি রফিকুর রহমান তোতনের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দলের খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিএনপির খুলনা বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত ও জয়ন্তু কুমার কুন্ডু।
জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু ও সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকনের সঞ্চালনায় নির্বাহী কমিটির সভায় জেলা বিএনপির সম্মানিত সদস্য ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগমসহ কার্যনির্বাহী কমিটির অন্যান্য সদস্যবৃন্দ অংশ নেন।
সভার শুরুতে দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য ও জেলা বিএনপির সম্মানিত সদস্য তরিকুল ইসলামসহ জেলা বিএনপির প্রয়াত সহসভাপতি আবু বকর আবু, ইকরামুল কবীর ইকু চৌধুরী, চমন আরা বেগম, যুগ্ম সম্পাদক আব্দার ফারুক, সহসাংগঠনিক সম্পাদক ফেরদৌস হোসেন, শেখ ফারুক সিদ্দিকী, তসলিম আহমেদ, জিয়াউল ইসলাম ডন, জালাল উদ্দীন আহমেদ, শামসুর রহমান, গাজী আজিবর হোসেন, ইদ্রিস আলী খোকন, ইজ্জত আলীসহ প্রয়াত নেতাদের স্মরণে শোকপ্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। সভায় কুস্টিয়ায় কারা হেফাজতে থাকা অবস্থায় বিএনপি নেতা এম এ শামীম আরজুর মৃত্যুতে গভীর শোক ও নিন্দা জানানো হয়। একই সাথে এ ঘটনার নিরপে তদন্ত দাবি করা হয়।
সভা সূত্রে জানা গেছে, আনুষ্ঠানিকভাবে সভার কার্যক্রম শুরুর পর থেকে সভায় উপস্থিত যশোরের ৮ উপজেলা ও পৌরসভার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ জেলা বিএনপির সম্পাদক মন্ডলীর মোট ২৩ জন সদস্য বক্তব্য দেন। এ সময় অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ সংগঠনকে গতিশীল ও শক্তিশালী করতে দলকে পুনর্গঠনের তাগিদ দেন। একই সাথে সকল ভেদাভেদ ভুলে নিজেদের মধ্যে ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলতে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ বৃদ্ধির বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে বক্তব্য দেন তারা। সভায় অধিকাংশ নেতাকর্মীর বক্তব্যে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে দলের নীতি নির্ধারণী ফোরামের সুনির্দিষ্ট ও যুগোপযোগী পদেেপর দাবি উঠে আসে।
সভায় উপস্থিত নেতৃবৃন্দ তৃণমূল নেতাকর্মীদের বক্তব্য শোনেন। বিকেলে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি দলের খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু তার সমাপনী বক্তব্য রাখেন। এ সময় তিনি নেতাকর্মীদের এসব সুনির্দিষ্ট মতামত লন্ডনে অবস্থানরত দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে সভার সার্বিক বিষয় মধ্যাহ্ন বিরতির পর অবহিত করেছেন বলে জানান। বাদবাকি বিষয়টি পরে সবিস্তার জানাবেন বলে নেতৃবৃন্দকে জানান। তিনি আরও বিশদ আলোচনার জন্য আগামী ২০ এপ্রিল বেলা ১১ টা পর্যন্ত সভার কার্যক্রম মুলতবি ঘোষণা করেন। এদিন বেলা ১১ টা থেকে জেলা বিএনপির কার্যালয়ে পুনরায় সভা শুরু হবে বলে তিনি জানান। এর আগে অনুষ্ঠানের অপর দুই বিশেষ অতিথি দলের খুলনা বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত ও জয়ন্ত কুমার কুন্ডু বক্তব্য রাখেন।
সভা শেষে কিছু সুনির্দিষ্ট বিষয়ে নিন্দা প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। এরমধ্যে কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে সুচিকিৎসাসহ তাকে মুক্তি না দেওয়া, লন্ডনে চিকিৎসাধীন বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দন্ডাদেশ বাতিল না করা, প্রেস কাব যশোরে যশোর জেলা বিএনপির পূর্বনির্ধারিত কার্যনির্বাহী সভায় পুলিশের বাধা দেওয়া, তেল, গ্যাস, বিদ্যুৎ, ও কৃষিপণ্যসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় যাবতীয় জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি, সারাদেশে হত্যা-ধর্ষণ, লুটপাট হতাশাজনকভাবে বৃদ্ধি, ব্যাংক, বীমাসহ যাবতীয় সরকারি প্রতিষ্ঠানের অর্থ লুটের মাধ্যমে দেউলিয়া করে দেওয়া, বিনা বিচারে দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীকে আটক রাখার ঘটনাসহ সামগ্রিক অন্যায় অবিচারের বিষয়ে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়। সভা থেকে ফেনির সোনাগাজীতে মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় নিন্দা জানানোসহ এ ঘটনার নিরপে তদন্ত দাবি করা হয়।

ভাগ