যশোরে শান্তিপূর্ণ অবরোধ পালিত

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বর্তমান সরকারের পদত্যাগের দাবিতে উত্তাল যশোরের রাজপথ। বিএনপির ডাকে সরকারের পদত্যাগের এক দফা দাবিতে চতুর্থ দফার অবরোধের শেষ দিনেও প্রকম্পিত হয় রাজপথ। সোমবার অবরোধের শেষ দিনে জেলাজুড়ে দলীয় নেতাকর্মীরা অবরোধের সমর্থনে সড়ক-মহাসড়কে নেমে আসেন। দিনভর তারা সড়কে অবস্থান নিয়ে মুক্তির মিছিল আর স্লোগান অব্যাহত রাখেন। তবে এদিনও যশোরের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সর্বত্র মারমুখী আচরণ করেন। এদিনও তারা জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের ৭ জন নেতা-কর্মীকে আটক করে। অবরোধের শেষ দিনেও যশোরের সড়ক-মহাসড়কে যাত্রী ও পণ্যবাহী পরিবহন চলাচল বন্ধ ছিল।
সোমবার অবরোধের সমর্থনে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কে নগর বিএনপি মিছিল করে। শহরের ভোলা ট্যাংক রোডে নগর বিএনপির ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ড শাখার নেতৃবৃন্দ যৌথ মিছিল করেন। এছাড়া যশোর শহরে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল ও ছাত্রদল পৃথক মিছিল করে। যশোর- বেনাপোল মহাসড়কে দেয়াড়া ইউনিয়ন যুবদল ও যশোর- ঝিনাইদহ মহাসড়কে আরবপুর ইউনিয়ন যুবদল মিছিল করে। যশোর-মনিরামপুর সড়কে মনিরামপুর পৌর যুবদল এবং মনিরামপুর-রাজগঞ্জ সড়কে উপজেলা যুবদল পৃথকভাবে অবরোধের সমর্থনে মিছিল করে।
এরআগে রোববার রাতে যশোর শহরের বিভিন্ন সড়কে অবরোধের সমর্থনে মশাল মিছিল হয়।
সোমবার সকাল থেকে দিনভর যশোর শংকরপুর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল থেকে কোন যাত্রীবাহী বাস ছেড়ে যায়নি। বিশেষ করে টার্মিনাল থেকে নির্ধারিত রুটে যেসব বাস চলাচল করে তার একটিও কোন রুটে ছেড়ে যায়নি। আবার মণিহার স্ট্যান্ড থেকে শুরু করে খাজুরা বাসস্ট্যান্ড থেকেও কোন রুটে বাস ছেড়ে যায়নি।
এদিকে যশোরের চারটি মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন নওয়াপাড়া নদী বন্দর, খুলনা শিল্পাঞ্চলসহ বেনাপোল স্থলবন্দরের শ শ পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল করলেও সোমবার অবরোধের শেষ দিনের চিত্র ছিল ভিন্ন। কোন মহাসড়ক দিয়ে পণ্যবাহী ট্রাক চলাচল করতে দেখা যায়নি।
বিএনপি নেতাকর্মীরা বলেন, জনবিচ্ছিন্ন সরকার খুব বেশি দিন তার অবৈধ ক্ষমতার মসনদ টিকিয়ে রাখতে পারবে না। জনরোষেই এই সরকারকে বিদায় নিতে হবে। তাই সময় থাকতে জনগণের দাবির প্রতি শ্রদ্ধা রেখে সরকারকে পদত্যাগের আহ্বান জানান নেতৃবৃন্দ। অন্যথায় এই বিক্ষুদ্ধ জনতা টেনে হিচড়ে ক্ষমতার মসনদ থেকে নামিয়ে দেবে।

 

Lab Scan