যশোরে ব্যবসায়ীর দেড় কোটি টাকা আত্মসাৎ,৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোরে অংশীদারের ব্যবসার কথা বলে শেখ মহব্বত আলী টুটুল নামে একজন ব্যবসায়ীর দেড় কোটি টাকা নিয়ে আত্মসাতের অভিযোগে ৩ ব্যক্তির বিরুদ্ধে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী মামলাটি করেছেন। তিনি শহরের লোন অফিস পাড়ার মৃত আব্দুল ওহাবের ছেলে।
মামলার আসামিরা হলেন, লোন অফিস পাড়ার মৃত আবু মিয়ার ছেলে রফিকুল ইসলাম লাবলু (৬০) ও শহিদুল ইসলাম ডাবলু (৬৫) এবং শহিদুল ইসলাম ডাবলুর ছেলে শফিকুল ইসলাম জ্যোতি (৩৮)।
ব্যবসায়ী শেখ মহব্বত আলী টুটুলের অভিযোগ, আসামিরা তার পূর্ব পরিচিত। পরিচয়ের সূত্র ধরে আসামি রফিকুল ইসলাম লাবলু ও শহিদুল ইসলাম ডাবলু ২০১৮ সালের ৬ নভেম্বর শেখ মহব্বত আলী টুটুলকে জানান যে, জেলা পরিষদ যশোরের চাঁচড়া মোড় হতে নওয়াপাড়ার রাজঘাট পর্যন্ত সড়কের পাশ থেকে ১৮৯৫টি গাছ এবং যশোর-ঝিনাইদহ সড়ক অংশে ৬৭টি গাছ বিক্রির জন্যে নিলাম আহ্বান করেছে। নিলামে অংশ নিয়ে ৫ কোটি টাকা খরচ করে গাছগুলো ক্রয় করতে পারলে ১৮ থেকে ২০ কোটি টাকায় বিক্রি করা যাবে। এজন্যে শেখ মহব্বত আলী টুটুলকে তাদের সাথে ব্যবসায় অংশীদার হতে প্রলুব্ধ করেন। ব্যবসায় অংশীদার হলে তারা তাকে লভ্যাংশ দেওয়ার কথা জানান। পরবর্তীতে শেখ মহব্বত আলী টুটুল খোঁজখবর নিয়ে জানতে পারেন, নিলামে গাছগুলো ক্রয় করতে পারলে ১৮ থেকে ২০ কোটি টাকায় বিক্রি হতে পারে। এর প্রেক্ষিতে তিনি তাদেরকে কয়েক দফায় মোট ৩ কোটি ৪৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা প্রদান করেন। টাকা গ্রহণের পর আসামি রফিকুল ইসলাম লাবলু, শহিদুল ইসলাম ডাবলু ও শফিকুল ইসলাম জ্যোতি তাদের ঠিকাদারি লাইসেন্সের মাধ্যমে নিলামে অংশ নিয়ে ৪ কোটি ৬৭ লাখ ৮৬ হাজার ৫৩৯ টাকায় গাছগুলো ক্রয় করেন। এরপর গাছগুলো কেটে তারা ১৫ কোটি ৬২ লাখ ৪৪ হাজার ১৬০ টাকায় বিক্রি করেন। পরে আসামিরা শেখ মহব্বত আলী টুটুলকে ১ কোটি ৯৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ করেন। কিন্তু তারা তাকে তার কাছ থেকে নেওয়া বাকি ১ কোটি ৪৮ লাখ টাকা আজও পরিশোধ করেননি। এমনকি তাকে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ব্যবসার লভ্যাংশও দেওয়া হয়নি। সর্বশেষ গত ১৫ জুন আসামিদের ডেকে এনে পাওনা ১ কোটি ৪৮ লাখ টাকা এবং লভ্যাংশ দাবি করেন শেখ মহব্বত আলী টুটুল। এ সময় তারা তাকে টাকা দিতে অস্বীকার করেন। ফলে বাধ্য হয়ে মামলা করেছেন শেখ মহব্বত আলী টুটুল।

 

 

 

 

Lab Scan