মৎস্যজীবীদের অভিমত ২২ দিনের ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা কাজে আসবে না

0

শরণখোলা (বাগেরহাট) সংবাদদাতা॥ ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধিতে সরকারের দেয়া ২২ দিনের অবরোধ এ বছর সঠিক সময় হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বাগেরহাটের শরণখোলার সমুদ্রগামী জেলেরা। তারা জানান, মা ইলিশ সাধারণত ডিম পাড়ে পূর্ণিমার গোনে। কিন্তু এ বছর অবরোধকাল হয়েছে অমাবশ্যার গোনে। তাদের ধারনা মতে এখনও অর্ধেক মা ইলিশ ডিম ছাড়তে পারেনি। যা এ বছর ইলিশ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাধাগ্রস্ত হতে পারে। জেলেদের মতে এ বছরের অবরোধের ধার্য সময়ের চেয়ে আরও ১৫ দিন সামনে বাড়িয়ে অবরোধ দিলে মা ইলিশ সম্পূর্ণ ডিম ছাড়তে পারতো। আগামীতে অবরোধের সময় সম্পর্কে সচেতন থাকতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন জেলেরা। এ বছর ইলিশের প্রজনন মৌসুমকে সামনে রেখে সরকার ১১ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর পর্যন্ত মোট ২২ দিন সমুদ্রসহ উপকূলীয় এলাকার নদ-নদীতে সব ধরনের মাছ ধরা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়।
শরণখোলা উপজেলার রায়েন্দা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের আরৎদার মজিবর রহমান তালুকদার ও কবির হাওলাদারসহ অন্যান্যরা জানান, মা ইলিশ মূলত পূর্ণিমার গোনে ডিম ছাড়ে। কিন্তু এ বছর অবরোধ পড়েছে অমাবশ্যার গোনে। পূর্ণিমার সময় ঝাঁকে ঝাকে মা ইলিশ ডিম ছাড়ার জন্যে সাগর থেকে স্থানীয় নদ-নদীতে ছুটে আসে। এই অবরোধ ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধি করবে বলে তারা মনে করেন না।
জানতে চাইলে শরণখোলা উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা বিনয় কুমার বলেন, বিশেষজ্ঞদের গবেষণা ও মতামতের ভিত্তিতেই সরকার অবরোধের সময় নির্ধারণ করেছেন। নিষেধাজ্ঞা সফল করতে সে অনুযায়ী তারা কাজ করেছেন। তিনি আরও জানান, ২২ দিনের অবরোধ শেষে শরণখোলার জেলেরা বৃহস্পতিবার রাত ১২টার পর থেকে ইলিশ আহরণের জন্যে ছুটে যাচ্ছেন সাগরে।

Lab Scan