মোংলায় আ.লীগ নেতার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

0

মোংলা (বাগেরহাট) সংবাদদাতা ॥ মোংলায় আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে হামলা-মারধরসহ ভোগদখলীয় সম্পত্তি দখলের অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সকালে মোংলা প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন শহরতলির কুমারখালী এলাকার বাসিন্দা গৃহবধূ মোসা. নুর নাহার বেগম।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন-স্বামী ও সন্তানের কষ্টে উপর্জিত অর্থে মাছমারা এলাকায় আরাজী মাকড়ঢোন মৌজায় ১৯৯৯ সালে ৩০ শতক জমি ক্রয় ও বিগত প্রায় ২৩ বছর ভোগদখল করে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে আসছি। কিন্তু হঠাৎ স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি পৌর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাবেক পৌর কাউন্সিলর হাবিবুর রহমান তার পুত্র সাদ্দাম, ফিরোজ, তারেকসহ ১৪/১৫ জন ব্যক্তি দেশীয় অস্ত্রশন্ত্র নিয়ে আমার ক্রয়কৃত ভোগদখলীয় সম্পত্তিতে প্রবেশ করে। এ সময় তারা জমির উপর নির্মিত একটি কাঠের ঘর, ঘেরাবেড়া লাঠি সোটা ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়। এ খবর পেয়ে স্বামী ছেলেকে নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছালে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তেড়ে আসে এবং শারীরিকভাবে মারধরসহ জীবননাশের হুমকি দেয়।
সংবাদ সম্মেলেনে গৃহবধূ অভিযোগ করে বলেন, আমি ও আমার স্বামী সন্তানকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে আমার ভোগদখলীয় জমিতে নেট,বাঁশ দিয়ে ঘেরা বেড়া দিয়ে যাতায়াত পথ বন্ধ করে দেয়। স্থানীয়দের হস্তক্ষেপে ঘটনাস্থল থেকে রক্ষা পেয়ে প্রাণ ভয়ে পালিয়ে আসতে বাধ্য হই। পরে ন্যায় বিচারের আশায় এ ঘটনা স্থানীয় থানা পুলিশসহ জনপ্রতিনিধিদের অবগত করি। কিন্তু কোন সুরাহ হয়নি। ভূমিদস্যু খ্যাত দখলদার এ গ্রুপটির বিরুদ্ধে অন্যের জমিদখলসহ সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয় জনপ্রতিনিধিসহ প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ওই গৃহবধূ। সংবাদ সম্মেলনে তার স্বামী হায়দার তালুকদার ও ছেলে মারুফ তালুকদার উপস্থিত ছিলেন। এদিকে হামলা ও জমিদখলের বিষয় অস্বীকার করে হাবিবুর রহমান বলেন, ওখানে তারও ক্রয়কৃত সম্পত্তি রয়েছে। সেখানে তিনি নতুন করে ঘেরাবেড়া দিয়েছেন।

 

Lab Scan