মুশফিক-তামিমের ইনজুরি ভাবনায় মাহমুদউল্লাহ টেস্ট স্কোয়াডে

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ সাদা পোশাকে হতশ্রী পারফরম্যান্সে মাহমুদউল্লাহকে টেস্ট ক্রিকেটে ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবতে বলেছিলেন কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। তাকে দল থেকে বাদ দেওয়ার পর জানিয়েছিলেন, ভালো কিছু করলেই তাকে দলে ফেরানো হবে।’কিন্তু ঘরোয়া ক্রিকেটে কোনো কিছু না করেই মাহমুদউল্লাহ ১৬ মাস পর টেস্ট স্কোয়াডে ঢুকছেন। জিম্বাবুয়ে সিরিজের দলে তাকে যুক্ত করেছেন নির্বাচকরা। কেন সেই উত্তর নির্বাচকরা না দিলেও দিয়েছেন ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান।
শনিবার মিরপুরে আকরাম খান বলেন,‘আমরা জরুরি একটি সভা করেছি। মিটিংয়ে নির্বাচকরা ছিলেন, বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান ছিলেন। আমাদের কিছু চোট সমস্যা দেখা দিয়েছে। তামিমের পায়ে একটু ব্যথা আছে। মুশফিকের আঙুলে একটু সমস্যা আছে। যেহেতু লম্বা সফর আর জিম্বাবুয়ের কন্ডিশন আমাদের জন্য কঠিন তাই আমরা কোনো ঝুঁকি নেইনি। তাই স্কোয়াডে একজন সদস্য বাড়িয়েছি।’
২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে সবশেষ টেস্ট খেলেছিলেন তিনি। এরপর দল থেকে বাদ পড়েন। তাকে সাদা পোশাকে আর বিবেচনায় আনেনি টিম ম্যানেজমেন্ট। পাশাপাশি গত বছর লাল বলের কেন্দ্রীয় চুক্তিতেও তাকে রাখেনি বিসিবি।
২০২০ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টে মাহমুদউল্লাহর পারফরম্যান্স ছিল দৃষ্টিকটু। প্রথম ইনিংসে ২৫, দ্বিতীয় ইনিংসে শূন্য রানে আউট হন। দ্বিতীয় ইনিংসে নাসিম শাহর হ্যাটট্রিক বলে মাহমুদউল্লাহ যেভাবে আউট হন তাতে টিম ম্যানেজমেন্টের বিরক্তি ধরে যায়। এরপর তাকে টেস্ট দল থেকেও বাদ দিয়েছিল দল।
ডমিঙ্গো জাতীয় দলের দায়িত্ব নেওয়ার পর চার টেস্টে মাহমুদউল্লাহর ব্যাট হাসেনি। এ সময়ে তার ইনিংসগুলো ছিল এরকম, ৭, ৭, ১০, ১৫, ৬, ৩৯*, ২৫ ও ০। ঘরোয়া ক্রিকেটে ভরসা অর্জন করা কোনো পারফরম্যান্স না করেই মাহমুদউল্লাহ ফিরেছেন টেস্ট দলে। বাদ পড়ার পর মাহমুদউল্লাহ মাত্র একটি চারদিনের ম্যাচ খেলেছেন। দুই ইনিংস মিলিয়ে সাউথ জোনের জার্সিতে রান করেছেন মাত্র ১ ও ১৭।

Lab Scan