মনিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১১ সেবাকর্মী নিয়োগে অর্ধকোটি টাকার ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগ

0

মজনুর রহমান,মনিরামপুর (যশোর)॥ মনিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত হওয়ায় আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে ১১ জন সেবাকর্মী নিয়োগ করা হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে চার বছরের চুক্তিভিত্তিক এ নিয়োগে অনিয়ম, দুর্নীতিসহ অর্ধকোটি টাকা ঘুষ বাণিজ্য করার। প্রতি প্রার্থীর কাছ থেকে চার থেকে পাঁচলাখ টাকা আদায় করা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে এ ঘুষ বাণিজ্যে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের নেতৃত্বে তিন সদস্যের নিয়োগ সিন্ডিকেট গড়ে তোলা হয়। চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে অধিকাংশ প্রার্থীর কাছ থেকে বিভিন্নহারে অগ্রিম টাকা নেওয়া হয়। কিন্তু যিনি বেশি টাকা দিয়েছেন শেষ পর্যন্ত তাকেই চাকরি দেওয়া হয়েছে। ফলে বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকায় ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন গত ২৮ মার্চ আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে মনিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ১১ জন সেবাকর্মী নিয়োগের জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করেন। এর মধ্যে ওয়ার্ডবয় তিনজন, ল্যাব অ্যাটেনডেন্ট একজন, ওটি বয় একজন, ইমারজেন্সি অ্যাটেনডেন্ট একজন, আয়া একজন, বাবুর্চি একজন, স্ট্রেচার বেয়ারার একজন, নিরাপত্ত প্রহরী একজন, ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী একজন। চার বছর মেয়াদী এ চাকরির জন্য প্রতি কর্মীর বেতন নির্ধারণ রয়েছে মাসে ১৬ হাজার ১শ টাকা। এ সেবাকর্মী নিয়োগের কাজটি পান ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান মেসার্স অর্থ প্রাইভেট লিমিটেড। ৩০ জুনের মধ্যে নিয়োগ দিতে প্রার্থীদের কাছ থেকে আবেদন আহ্বান করা হয়। সে মোতাবেক মনিরামপুরে আবেদন করেন শতাধিক প্রার্থী।
অনুসন্ধানে জানা যায়, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান অর্থ প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক কাজল বিশ্বাস এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. তন্ময় বিশ্বাসের গ্রামের বাড়ি মনিরামপুরে। তাদের দুজনের মধ্যে ছোটবেলা থেকেই রয়েছে বেশ সখ্যতা। ফলে চাকরির প্রত্যাশায় এলাকার প্রার্থীরা ধর্না দেন তাদের কাছে। এক পর্যায়ে দুজনের সাথে যুক্ত হয় তাদের অপর বন্ধু পৌর শহরের আইটি প্রতিষ্ঠান মেসার্স ফিফো ডিজিটালের পরিচালক অসিত মল্লিক। আর এ তিন বন্ধুর সমন্বয়ে গড়ে তোলা হয় নিয়োগ সিন্ডিকেট। উপজেলা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা কমিটির অন্যতম সদস্য তুলসি বসু জানান,সব সময় হাতের কাছে পাওয়ায় অধিকাংশ প্রার্থীরাই চাকরির জন্য যোগাযোগ করেন অসিত মল্লিকের সাথে। অভিযোগ রয়েছে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে অধিকাংশ প্রার্থীর কাছ থেকে দুই থেকে তিন লাখ টাকা করে অগ্রিম বাবদ নেওয়া হয়। প্রার্থীদের মধ্যে সর্বোচ্চ ঘুষ প্রদানকারী (পাঁচলাখ করে) ১১ জনের একটি চূড়ান্ত তালিকা করে যাচাই বাছাইয়ের জন্য যশোর সিভিল সার্জনের কার্যালয়ে পাঠানো হয়। সিভিল সার্জন ডা. বিপ্লব কুমার বিশ্বাস জানান, তার দপ্তর থেকে প্রার্থীদের কাগজপত্র বাছাইয়ের পর ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ২৪ জুন মৌখিক পরীক্ষা সম্পন্ন করেন। শেষ পর্যন্ত আগের তালিকা অনুসারে সেই ১১ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়। নিয়োগকৃতরা চাকরিতে যোগদান করেন গত ৮ জুলাই।
অন্যদিকে চাকরি বঞ্চিতদের মধ্যে বেশ কয়েকজনকে টাকা ফেরত দেওয়া হয়েছে। মাছনা এলাকার ইয়াকুব আলী নামে এক যুবকের কাছ থেকে অগ্রিম বাবদ দুই লাখ টাকা নেওয়া হয়। তার চাকরি না হওয়ায় টাকা ফেরত দেওয়া হয়। অন্যদিকে বাকোশপোল এলাকার জাহানারা খাতুন, আবদুর রহিমের কাছ থেকেও অগ্রিম বাবদ দুই লাখ করে টাকা দাবি করা হয়। কিন্তু অগ্রিম টাকা না দেওয়ায় তাদের কপালে জোটেনি চাকরি। আবার পাড়দীয়া এলাকার পারভীনা খাতুন জানান, চাকরির জন্য তার কাছে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করা হয়। কিন্তু তিনি তিন লাখ টাকা দিতে সম্মতি হন। ফলে তাকে চাকরি দেওয়া হয়নি।
চাকরি দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা.তন্ময় বিশ্বাসের ভাইপো সজিব বিশ্বাসকে স্টেচার বেয়ারার পদে। ওয়ার্ডবয়ের চাকরি দেওয়া হয়েছে মিতালী দেব নাথ, পলাশ বক্সী ও মুশফিকা রহমানকে। ল্যাব অ্যাটেনডেন্ট পদে মৌসুমী আক্তার রুমি, ওটি বয় রাকেশ দত্ত, ইমারজেন্সি অ্যাটেনডেন্টপ্রাপ্ত কুমার মন্ডল, আয়া কাকলী মন্ডল, বাবুর্চি আবদুল মান্নান, নিরাপত্তা প্রহরী বিন্দু মন্ডল ও পরিচ্ছন্নতা কর্মীর চাকরি দেওয়া হয়েছে ইসমাইল হোসেনকে। তবে পরিচ্ছন্নতাকর্মী নিয়োগে হরিজন সম্প্রদায়ের অগ্রাধিকার দেওয়ার নির্দেশনা থাকলেও তা মানা হয়নি।
তবে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তন্ময় বিশ্বাস তার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, এ নিয়োগে তার কোনো হাত নেই। যা কিছু হয়েছে তা ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানই করেছে। অন্যদিকে প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায়কারীর দায়িত্বে থাকা অসিত মল্লিক নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন, কোনো প্রার্থী প্রমাণ করতে পারবে না আমি চাকরি দেওয়ার কথা বলে টাকা নিয়েছে। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান অর্থ প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক কাজল বিশ্বাস জানান, সেবাকর্মী নিয়োগে কোনপ্রকার অনিয়ম ও দুর্নীতি করা হয়নি। নিয়ম মেনেই নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

 

Lab Scan