মনিরামপুরে ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষক আটক

স্টাফ রিপোর্টার, মনিরামপুর (যশোর) ॥ যশোরের মনিরামপুরে মাদ্রাসা শিক কর্তৃক প্রথম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক ইমরান হোসেনকে শনিবার রাতে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। আটক ইমরান মনিরামপুর উপজেলার খানপুর ইউনিয়নের একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসায় শিক হিসেবে এক সপ্তাহ আগে যোগদান করেন। তিনি যশোরের অভয়নগর উপজেলার আমডাঙ্গা গ্রামের মৃত আরব আলীর ছেলে। এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, শনিবার বিকেলে ওই মাদ্রাসায় সহকারি শিক ইমরান হোসেনের কাছে কয়েকজন শিার্থী পড়তে যায়। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণির এক ছাত্রী বাদে অন্য শিার্থীদেরকে তিনি মাঠে খেলা করতে পাঠান। এ সুযোগে ইমরান হোসেন শ্রেণিকরে মধ্যেই ওই শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এসময় শিশুটির চিৎকারে মাঠে থাকা শিার্থীরা এগিয়ে আসলে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। ঘটনাটি জানাজানি হবার পর বিুদ্ধ এলাকাবাসী রাত সাড়ে ১১ টার দিকে মাদ্রাসায় গিয়ে শিক ইমরান হোসেনকে পিটুনি দিয়ে থানায় খবর দেন। রাত ১২ টার দিকে পুলিশ সেখান থেকে ইমরানকে আটক করে। এ ঘটনায় রাতেই ওই ছাত্রীর চাচা বাদী হয়ে অভিযুক্ত ইমরান হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) এনামুল হক জানান, জবানবন্দি রেকর্ডের জন্য ওই শিশুটিকে থানা হেফাজতে নেয়া হয়। অপরদিকে রোববার বিকেলে শিক ইমরানকে সোপর্দ করা হয় আদালতে।

ভাগ