মনিরামপুরে কাঁঠালতলায় কৃষি জমিতে পুকুর খনন রাস্তা ভেঙে দুর্ভোগে পড়ার শঙ্কা এলাকাবাসীর

0

ওসমান গণি. রাজগঞ্জ (যশোর) ॥ যশোরের মনিরামপুর উপজেলার মশ্মিমনগর ইউনিয়নের কাঁঠালতলা কাঠ মোড় এলাকায় রাস্তার পাশে দুটি বড় ধরনের পুকুর খনন করা হচ্ছে। কৃষি জমিতে পরপর বড় দুটি পুকুর খনন করায় রাস্তা ভেঙে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হতে পারে বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন।
জানা যায়, স্থানীয় প্রভাবশালী সায়েদ আলী ও আবু শাহিন নামের দুই ব্যক্তি ধানি জমি কেটে অবৈভভাবে পুকুর খনন করছেন। একটু ভারী বৃষ্টি হলেই ওই রাস্তাটি ভেঙে জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হবে। জনগুরুত্বপূর্ণ ওই রাস্তা দিয়ে যাত্রীবাহী বাস ও ভারী যানবাহন চলাচল করে।
পাশাপাশি এই রাস্তা দিয়ে ১৫টি গ্রামের শ শ কোমলমতি শিক্ষার্থী স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় যাতায়াত করে থাকে। জনস্বার্থে রাস্তার সাথে কৃষি জমিতে পুকুর খনন করে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করতে না পারে এজন্য গ্রামবাসী প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
এদিকে রাস্তার পাশে পুকুর খনন করায় গত দুই দিনের হালকা বৃষ্টিতে পাকা রাস্তাটি এখন কাদাযুক্ত রাস্তায় পরিণত হয়েছে। প্রশাসনের অনুমতি উপেক্ষা করে গত ১০ থেকে ১৫দিন ধরে এলাকার কৃষি জমিতে পুকুর খনন অব্যাহত রয়েছে। খননকৃত ওই পুকুরের মাটি ট্রাক্টরে করে অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। মাটি নিয়ে যাওয়ার সময় ট্রাক্টর থেকে সড়কে যে মাটি পড়ছে সেই মাটি বৃষ্টির পানিতে ভিজে পিচ্ছিল হয়ে পুরো পাকা সড়কটি এখন কাদায় পরিণত হয়েছে। পুকুর খননকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় জনদুর্ভোগকে পাত্তা না দিয়ে তাদের কাজ অব্যাহতভাবে চালিয়ে যাচ্ছেন বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।
ভাড়ায়চালিত মোটরসাইকেল চালক আব্দুর রশীদ জানান, কাঁঠালতলা এলাকায় কাদায় মোটরসাইকেলটি স্লিপ করে রাস্তার ওপর পড়ে যান তিনি। এতে যাত্রীসহ তিনি আহত হন। ইজিবাইক চালক আবুল বাসার জানান, তিনি ৬জন যাত্রী নিয়ে বহু কষ্ট করে এ সড়ক অতিক্রম করেছে। তবে তার ইজিবাইকটি সম্পূর্ণ কাদায় পরিপূর্ণ।
পথচারী আব্দুল মজিদ জানান, বন্যাকবলিত মশ্মিমনগর ইউনিয়নের পারখাজুরা, ভরতপুর, লক্ষ্মীকান্তপুর ও কাঁঠালতলার কাঁঠ মোড় এলাকায় দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকার কিছু অসাধু ব্যক্তি এস্কেভেটর মেশিন দিয়ে কৃষি জমি খনন করে মাটির ব্যবসা করছেন। তাদের কারণেই পাকা সড়কের এ রকম বেহাল অবস্থা। গত দুই দিনে এই সড়কে ৩ ব্যক্তি মোটরসাইকেল নিয়ে পড়ে আহত হয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি।
আবু শাহিন হোসেন জানান, বাড়ির ভেতরে জায়গা কম। তাই রাস্তার পাশের কৃষি জমি থেকে স্কেভেটর মেশিন দিয়ে মাটি কেটে পুরানো পুকুরটি ভরাট করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে মশ্মিমনগর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন জানান, তিনি বিষয়টি জানেন না। তবে খোঁজ খবর নিয়ে কৃষিজমি খননকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান।এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো.আলী হাসান জানান, কৃষিজমি কেটে পুকুর খননকারীদের কোনও ছাড় নেই। ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

Lab Scan