মনিরামপুরের ৩ বাড়িতে অজ্ঞান পার্টির হানা, ৫ জনকে অচেতন করে লুট

0

 

স্টাফ রিপোর্টার,মনিরামপুর(যশোর)॥ যশোরের মনিরামপুরে গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা একে একে তিনটি বাড়িতে হানা দিয়ে কৌশলে পরিবারের লোকজনকে চেতনানাশক স্প্রে করে স্বর্ণালঙ্কার, নগদ টাকাসহ পাঁচ লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করেছে। এ সময় দুর্বৃত্তদের চেতনানাশকে পাঁচজন অচেতন হয়ে পড়েন। ঘটানাটি ঘটেছে মঙ্গলবার গভীর রাতে উপজেলার দত্তকোনা গ্রামে। বুধবার সকালে পাঁচজনকে অচেতন অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা উপজেলার দূর্বাডাঙ্গা ইউনিয়নের দত্তকোনা গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক কওসার আলীর বাড়িতে হানা দেয়। এসময় তারা প্রথমে কৌশলে কওসার আলী ও তার স্ত্রী রেবেকা খাতুনকে ঘর থেকে বের করে চোখেমুখে চেতনা নাশক স্প্রে করে পাশে একটি রান্নাঘরের মধ্যে আটকিয়ে রাখে। পরে পাশের কৃষক হারুন আর রশিদ ও অবসরপ্রাপ্ত ভিডিপি কমান্ডার কাজী হোসাইনের বাড়িতে ঢুকে অনুরুপভাবে পরিবারের লোকজনের চোখেমুখে চেতনানাশক স্প্রে করে। এ সময় তারা অচেতন হয়ে পড়লে দুর্বৃত্তরা একে একে তিনটি পরিবার থেকে স্বর্ণালংকার, নগদসহ প্রায় পাঁচ লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
বুধবার সকাল সাতটার দিকে প্রতিবেশী রবিউল ইসলাম নামে এক যুবক রান্নাঘর থেকে স্কুল শিক্ষক কওসার আলী ও তার স্ত্রীকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেন। একইভাবে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয় পাশের বাড়ির কাজী হোসাইন, হারুন আর রশিদ ও তার ছেলের স্ত্রী তানিয়া খাতুনকে। উদ্ধারের পর তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। তবে এর মধ্যে অবস্থার অবনতি হওয়ায় বুধবার বিকেলে স্কুল শিক্ষক কওসার আলী ও তার স্ত্রী রেবেকো খাতুনকে উন্নত চিকিৎসার জন্যে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
এদিকে খবর পেয়ে দুপুর ১২ টার দিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসেন, সহকারী পুলিশ সুপার(মনিরামপুর সার্কেল) আশেক সুজা মামুন, থানার অফিসার ইনাচার্জ শেখ মনিরুজ্জামান। ওসি মনিরুজ্জামান জানান, বিষয়টি উদঘাটন করতে ইতোমধ্যে ডিবিসহ পুলিশের বেশ কয়েকটি ইউনিট এলাকায় কাজ শুরু করেছে।

 

Lab Scan