মনিরামপুরের আ.লীগ নেতা আবু আব্দুল্লাহ হত্যা মামলার সব আসামি খালাস

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ প্রায় ১৩ বছর পর বুধবার যশোরের মনিরামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ব্যবসায়ী আবু আব্দুল্লাহ হত্যা মামলার রায় হয়েছে আদালতে। রায়ে চাঞ্চল্যকর ওই মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় বিচারক সকলকে খালাস প্রদানের আদেশ দিয়েছেন। অতিরিক্ত জেলা জজ ২য় আদালতের বিচারক সোহানী পূষণ এই রায় প্রদান করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আসামিপক্ষের আইনজীবী মো. সিরাজুল ইসলাম ও কাজী রেফাত রেজওয়ান সেতু।
খালাসপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, মনিরামপুর উপজেলার হানুয়ার গ্রামের মৃত শামছুর রহমানের ছেলে মোবাশ্বের হোসেন হীরা, মোবারকপুর (ছোট মনোহরপুর) গ্রামের এনায়েত উল্লাহর ছেলে শফিকুল ইসলাম টুলু, হামেদ আলী সরদারের ছেলে আব্দুল মজিদ, চন্ডিপুর গ্রামের মুজিবর রহমানের ছেলে সাইফুল ইসলাম ও আব্দুস সালাম গাজীর ছেলে লিটু আনাম ওরফে লিটু।
মামলা ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, নিহত আওয়ামী লীগ নেতা আবু আব্দুল্লাহর রাজগঞ্জ বাজারে সরদার ট্রেডার্স নামে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছিলো। উল্লিখিত আসামিদের সাথে তার জায়গাজমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো। এ জন্যে আসামিরা তাকে খুন -জখমের হুমকি দিয়ে আসছিলেন। ২০১১ সালের ২৯ আগস্ট রাত ৮টার দিকে আবু আব্দুল্লাহ তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলে করে রাজগঞ্জ বাজার থেকে হানুয়ার গ্রামের বাড়ি বাড়িতে ফিরছিলেন। পথে হানুয়ার গ্রামের মানিকগঞ্জ ব্রিজের কাছে পৌঁছালে আসামিরা তার ওপর বোমা হামলা চালান। এ সময় তিনি মোটরসাইকেল থেকে পড়ে গেলে তারা তাকে শ্বাসরোধে হত্যার পর পালিয়ে যান। এ ব্যাপারে নিহতের ছেলে আলী রেজা ৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জনকে আসামি করে ৩০ আগস্ট মনিরামপুর থানায় মামলা করেন। ওই মামলার তদন্ত শেষে উল্লিখিত ৫ জনকে অভিযুক্ত করে ২০১৩ সালের ৯ আগস্ট আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন মনিরামপুর থানা পুলিশের এসআই মো. জামিরুল ইসলাম।
আসামিপক্ষের আইনজীবী মো. সিরাজুল ইসলাম ও কাজী রেফাত রেজওয়ান সেতু জানান, সাক্ষ্য প্রমাণে আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হযনি। এ কারণে মামলার রায়ে আদালতের বিচারক সব আসামিকে খালাস প্রদানের আদেশ দিয়েছেন।

 

Lab Scan