বেনাপোলের অস্ত্র ব্যবসায়ী ফারুকের ১৪ বছর কারাদণ্ড

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অস্ত্র আইনের একটি মামলায় বেনাপোলের অস্ত্র ব্যবসায়ী ফারুক সরদারকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। এছাড়া মামলার অপর এক আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে খালাস দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার যশোরের স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৩’র বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ সোহানী পূষণ এই রায় প্রদান করেন।
সাজাপ্রাপ্ত আসামি ফারুক সরদার বেনাপোলের পুটখালী উত্তরপাড়ার আকতার সরদারের ছেলে। রায় ঘোষণার সময় তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।
অপরদিকে মামলা থেকে খালাস পাওয়া আসামির নাম জনি। তিনি পুটখালী পশ্চিমপাড়ার ছাদেক মোল্লার ছেলে।
মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১০ সালের ১৯ আগস্ট গভীর রাতে র‌্যাব সদস্যরা গোপন সূত্রে জানতে পারেন, পুটখালী পশ্চিমপাড়া মাদ্রাসার পাশে একটি সংঘবদ্ধ চক্র অস্ত্র বেচাকেনা করছে। এ খবর পেয়ে র‌্যাব সদস্যরা বিজিবি’র সহযোগিতায় সেখানে অভিযান চালান। এ সময় সেখান থেকে ২টি রিভলবার ও ৬ রাউন্ড গুলিসহ অস্ত্র ব্যবসায়ী ফারুক সরদারকে আটক করা হয়। তবে র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যান ফারুক সরদারের সঙ্গী জনি। পরে এ ঘটনায় র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের ডিএডি আব্দুর রহমান বেনাপোল পোর্ট থানায় অস্ত্র আইনে মামলা করেন। এরপর মামলার তদন্ত শেষে ফারুক ও জনিকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের এসআই আজমল হুদা। মঙ্গলবার দুই আসামির উপস্থিতিতে রায় ঘোষণা করেন আদালতের বিচারক। মামলায় আসামি ফারক সরদারের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদ- প্রদান এবং আসামি জনির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে খালাস দেন বিচারক।

Lab Scan