বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের দায় ছাত্রলীগের: নুর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, এদেশে ছাত্ররাজনীতির একটা ঐতিহ্য আছে। আজকে সেই ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিটা কেন উঠে এসেছে? আজকে ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কারণেই এই দাবি উঠছে। সুতরাং সামগ্রিকভাবে ছাত্র রাজনীতি নয়; সন্ত্রাসী ছাত্ররাজনীতি, লেজুড়বৃত্তিক দলীয় ছাত্র রাজনীতি বন্ধের জন্য সকলের দাবি তোলা উচিত। গতকাল দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের প্রতিক্রিয়া জানাতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে ‘সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’। তিনি বলেন, বুয়েটের শিক্ষার্থীরা তাদের বক্তব্যে স্পষ্টভাবে বলেছে তারা ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জানায়নি বরং তারা সাংগঠনিক ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছে। তিনি আরো বলেন, দলীয় লেজুড়বৃত্তিক রাজনীতির কারণে আজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো সন্ত্রাসের অভয়ারণ্যে পরিণত হচ্ছে। সেজন্যই আমরা বলছি, মূল দল থেকে ছাত্র সংগঠনগুলোকে বিকেন্দ্রীকরণ করতে হবে।
ছাত্রসংগঠনগুলো কেন রাজনৈতিক দলের ক্ষমতায় যাওয়ার বা থাকার লাঠিয়াল বাহিনী হিসেবে ব্যবহার হবে প্রশ্ন রাখেন তিনি। সুস্থ ধারার মেধাভিত্তিক ছাত্ররাজনীতি বিকাশের জন্য অতি দ্রুত ছাত্র সংসদ নির্বাচন দেয়ার দাবি জানান নুর। এসময় তিনি পাঁচ দফা দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলো হলো- দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল গঠনের মাধ্যমে আবরারসহ সকল ছাত্র হত্যার বিচার দ্রুত সম্পাদন করতে হবে; নিরাপদ ও গণতান্ত্রিক ক্যাম্পাস বিনির্মাণে গণরুম, গেস্টরুম ও হলে হলে ছাত্রসংগঠনের দখলদারিত্ব বন্ধ করে প্রশাসনের মাধ্যমে প্রথম বর্ষ থেকে সিট বণ্টন নিশ্চিত করতে হবে, অতি দ্রুত সকল বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে ছাত্রসংসদ নির্বাচন দিতে হবে; ভারতের সঙ্গে করা দেশের স্বার্থবিরোধী সকল চুক্তি বাতিল করতে হবে এবং ভিসিসহ সকল গুরুত্বপূর্ণ পদে দলনিরপেক্ষ ব্যক্তিদের নিয়োগ দিয়ে প্রশাসনকে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত রাখতে হবে। এসব দাবিতে আজ বিকাল চারটায় শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে ছাত্রসমাবেশ করার ঘোষণা দেয়া হয়েছে সংবাদ সম্মেলন থেকে। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন, ফারুক হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
ছাত্রলীগকে নিষিদ্ধের দাবি প্রগতিশীল ছাত্রজোটে: এদিকে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়েছে বামপন্থী ছাত্রসংগঠনগুলোর মোর্চা প্রগতিশীল ছাত্রজোট। গতকাল দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে তারা এই প্রতিবাদ জানান। এসময় তারা অভিযোগ করেন বাস্তবে বুয়েট শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ ছাত্ররাজনীতির ওপর নয় বরং ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রসংগঠন ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। এসময় তারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের অভিযোগে ছাত্রলীগকে দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস থেকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানান। বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণার সিদ্ধান্তের প্রতিক্রিয়া জানাতে জোটের কেন্দ্রীয় কমিটি এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। এতে লিখিত বক্তব্য পেশ করেন জোটের সমন্বয়ক ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল কাদেরী জয়।

ভাগ