বিজয়া দশমীতে ঢাকুরিয়ায় জমজমাট জামাইবাজার

এসএম মজনুর রহমান, মনিরামপুর (যশোর)॥ শান্ত কুমার সরকার(৩৫) চাকরি করেন সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলায় একটি এনজিওতে। স্ত্রী সুধা সরকার একটি বেসরকারি কলেজের প্রভাষক। শান্ত সরকার স্ত্রীকে সাথে নিয়ে দূর্গাপূজার বিজয়া দশমীতে মঙ্গলবার মনিরামপুর উপজেলার ব্রহ্মপুর গ্রামে শ্বশুরবাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে বিকেল পাঁচটার দিকে পৌঁছান ঢাকুরিয়া বাজারে। শশুর বাড়িতে ঢোকার আগে তিনি যান ঢাকুরিয়া স্কুল মাঠে আয়োজিত জামাই বাজারে। হাজারো ভিড়ের মধ্যে স্ত্রীকে সাথে নিয়ে সাত কেজি ওজনের একটি কাতলা মাছ কিনে নেন চার হাজার দুইশ’ টাকায়। শুধু শান্ত-সুধা দম্পতি নয়, তাদের মত সুজয় মল্লিক, রতন সরকার, উজ্জ্বল রায়-উর্মিলা রানীসহ অসংখ্য দম্পতিকে দেখা যায় বড় বড় মাছ কেনার জন্য জামাইবাজার নামের মাছের মেলায়। কেউ পাঁচ কেজি, আবার কেউ ১০ কেজি, কেউ ১৫ কেজি ওজনের রুই কাতলা মৃগেল ব্লাডকার্পসহ বিভিন্ন প্রজাতির বড় বড় মাছ কিনে হাসিমুখে শ্বশুরবাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হচ্ছেন।
দুর্গা উৎসবে অংশ নিতে যে জামাইরা শ্বশুর বাড়ির যাবেন তাদের জন্য এ মেলা। তাই এর নাম জামাইবাজার।
উপজেলার ঢাকুরিয়া বাজারে স্কুল মাঠে আয়োজিত এ জামাইবাজারকে কেন্দ্র করে ঢাকুরিয়া বাজার ও তার আশপাশ এলাকায় আনন্দঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়। দুপুর দুইটা থেকে শুরু হয়ে গভীর রাত পর্যন্ত চলে এ বাজার। প্রায় অর্ধশতাধিক দোকান বসে বাজারে। রুই, কাতলা, মৃগেল, গজাল, বোয়াল, পাঙ্গাস, পাতাড়ি, ভাঙ্গান, ব্লাডকাকর্প, সিলভারকার্পসহ বিভিন্ন প্রজাতির বড় বড় মাছের সমারোহে ক্রেতা দম্পতির পাশাপাশি উৎসুক জনতার ভিড় ছিল লক্ষণীয়। কথা হয় এ বাজারের প্রবীন দোকানী সুবোলকাঠি গ্রামের শংকর বিশ্বাস (৬৯)এর সাথে। তিনি জানান, ৩৫ বছর ধরে বিজয়দশমীতে এ জামাইবাজারে তিনি মাছের দোকান বসিয়ে আসছেন। মাছ কিনতে আসা গাবুখালী গ্রামের মৃনাল মল্লিক জানান, তিনি সেই ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছেন দূর্গাপূজায় বিজয়াদশমীতে এ স্কুল মাাঠে জামাইবাজার বসে আসছে। তবে এখানে মাছের দাম একটু বেশি। এলাকার প্রদিপ বণিক জানান, এলাকার প্রতিটি হিন্দু পরিবারে দূর্গোৎসবের পাশাপাশি বিজয়দশমীতে এ জামাইবাজার বাড়তি আনন্দ এনে দেয়। কারণ এদিন মেয়ে-জামাই বাড়িতে আসেন।
ঢাকুরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ তাপস কুমার কুন্ড জানান, দীর্ঘদিন যাবত দূর্গপূজার বিজয়দশমীতে এখানে জামাইবাজারের আয়োজন হয়ে আসছে। ফলে বিশেষ এ বাজারকে কেন্দ্র করে এলাকায় বাড়তি আনন্দ বিরাজ করে। এবারও তার ব্যত্যয় হয়নি। বাজার কমিটির সেক্রেটারি ইসরাফিল হোসেন জানান, শান্তিপূর্ণভাবে রাত সাড়ে ১২ টার দিকে বাজার শেষ হয়। তার ওপর সন্ধ্যার পর স্থানীয় সংসদ সদস্য পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য জামাইবাজার পরিদর্শনে গেলে আনন্দের মাত্রা আরো বেড়ে যায়।

ভাগ