বাস চাপায় ৭জন নিহতের ঘটনায় থানায় মামলা, চালক আটক

0

স্টাফ রিপোর্টার॥ শুক্রবার সন্ধ্যায় যশোর সদর উপজেলার লেবুতলা বাজারে বেপরোয়া গতির চলন্ত বাসের চাপায় ৭জন নিহতের ঘটনায় কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে।
বাঘারপাড়া উপজেলার যাদবপুর মুন্সিপাড়ার আব্দুল মান্নান মুন্সির ছেলে ছোটন হোসেন রয়েল ডিলাক্স নামের বাসের (ঢাকা মেট্টো-ব-১৪-৩৮৭৬) চালকের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন।
এদিকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রয়েল ডিলাক্সের চালক মিজানুর রহমানকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছেন যশোর পরিবহণ শ্রমিক ও মালিক সমিতির নেতারা।
শনিবার সন্ধ্যার দিকে মিজানুর রহমানকে তারা পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। মিজানুর যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার পাঠান পাইকপাড়া গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে।
এজাহারে ছোটন হোসেন উল্লেখ করেছেন, গত শুক্রবার বিকেল সোয়া ৬টার দিকে খাজুরা বাজার থেকে ইজিবাইক চালক ইমরান হোসেন মুন্নাকে সাথে নিয়ে তার পরিবারের সদস্যরা যশোরে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্যে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে খাজুরা বাজারে পৌঁছালে রয়েল ডিলাক্সের ওই বাসটি বেপরোয়া গতিতে এসে ইজিবাইকের সামনে এসে ধাক্কায় দেয়। এতে ইজিবাইকটি বাসের নিচে পড়ে যায়। এবং বাসটিও উল্টে যায়। পরে ঘটনাস্থলেই তার ভাবি মাহিমা (৪৫), ভাতিজি সোনিয়া (২৫), ভাবির বোন ফাহিমা (৩৫), ফাহিমার মেয়ে জেবা (৭), ভাতিজির দুই ছেলে হাসান (৭) ও হোসাইন (৩), তার পুতনি ফাতিমা (৫) মারাত্মক জঘম হন। এবং মাহিমা, ফাহিমা ও হাসান মারা যায়। আহত অবস্থায় জেবা, ইমরান, মুন্না, হোসাইন, ফাতিমা ও সোনিয়াকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে জেবা, মুন্না, হোসাইন ও ইমরান মারা যায়। এবং সোনিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্যে ঢাকায় রেফার করা হয়। তিনি ঘটনা শুনে সেখানে যান এবং বেপারোয়া গতির বাসের ধাক্কায় তার পরিবারের সদস্য নিহত হয়েছেন বলে জানতে পারেন।। ঘটনার পরপরই বাসের চালক ও হেলপার পালিয়ে যান। পুলিশ বাসটি হেফাজতে নিয়েছে।
যশোর পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সেলিম রেজা মিঠু জানিয়েছেন, লেবুতলায় যে ঘটনা ঘটেছে তা মার্মান্তিক ও হৃদয় বিদায়ক। এই ঘটনার সাথে বাস চালক জড়িত কি-না তা তদন্ত করছে পুলিশ। পুলিশকে সহযোগিতার জন্যে বাস চালক মিজানুর রহমানকে তাদের হাতে সোপর্দ করা হয়েছে। এ সময় সংগঠনের সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ হারুন অর রশিদ ফুলু, যশোর বাস মালিক সমিতির সহসভাপতি সরোয়ার হোসেন, খাজুরা বাস মালিক সমিতির সভাপতি তারেক হোসেন, যুগ্ম সম্পাদক জিল্লুর রহমান, শ্রমিক নেতা আবু হাসানসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।
শ্রমিক নেতা মিঠু জানিয়েছেন, মহাসড়কে ভিন্ন গতির যানবাহন চলাচলের কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটছে। মহাসড়কে ইজিবাইক, নসিমন, কমিরন, আলমসাধু, থ্রি-হুইলারসহ নানা গতির যানবাহন চলাচল করে। ফলে রাস্তায় বাস, ট্রাক বা অন্য কোন দ্রত গতির যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। যশোরের শ্রমিক সংগঠনগুলো এর প্রতিবাদে নানা আন্দোলন সংগ্রাম করেছে। দাবি করা হয়েছে-ছোট যানবাহনের জন্যে আলাদা লেন তৈরি করার। কিন্ত সে দাবি কখনো পূরণ হয়নি। ফলে দুর্ঘটনা লেগেই আছে। এছাড়া হাইকোর্টের নির্দেশ রয়েছে মহাসড়কে যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করার। কিন্তু সে নির্দেশনাও পালন হচ্ছে না।

 

 

Lab Scan