বাটার মুনাফায় ধস

চলতি হিসাব বছরের প্রথমার্ধে (২০১৯ সালের জানুয়ারি-জুন) পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বাটা সু’র মুনাফায় ধস নেমেছে। আগের বছরের তুলনায় কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা কমে অর্ধেকের নিচে নেমেছে। চলতি বছরের জানুয়ারি-জুন সময়ের আর্থিক অবস্থা নিয়ে অনুষ্ঠিত কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভা শেষে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের ছয় মাসে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে ২০ টাকা ৫০ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ৪৬ টাকা ৪২ পয়সা। এ হিসাবে চলতি বছরের প্রথমার্ধে শেয়ারপ্রতি মুনাফা কমেছে ২৫ টাকা ৯২ পয়সা।
এদিকে চলতি বছরের শেষ তিন মাসে (এপ্রিল-জুন) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয়েছে ১৫ টাকা ৫৬ পয়সা। আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয় ৩৩ টাকা ৫৬ পয়সা। এপ্রিল-জুন সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা আগের বছরের তুলনায় কমেছে ১৮ টাকা। পুঁজিবাজারের ব্লু চিপ কোম্পানি হিসেবে পরিচিত বাটা সু বরাবরই শেয়ারহোল্ডারদের মোটা অঙ্কের লভ্যাংশ দিচ্ছে। ২০১৮ সালে কোম্পানিটি শেয়ারহোল্ডারদের ৩৪৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়। তার আগের বছর অর্থাৎ ২০১৭ সালে ৩৩৫ শতাংশ, ২০১৬ সালে ৩৩০ শতাংশ এবং ২০১৫ সালে ৩২০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় কোম্পানিটি। ২০ কোটি টাকা অনুমোদিত এবং ১৩ কোটি ৬৮ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিটির মোট শেয়ার সংখ্যা এক কোটি ৩৬ লাখ ৮০ হাজার। বর্তমানে প্রতিটি শেয়ারের দাম এক হাজার ৩৩ টাকা ৬০ পয়সা। কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ৭০ শতাংশই রয়েছে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের হাতে। বাকি শেয়ারের মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে আছে ৮ দশমিক ৮৩ শতাংশ। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ১৯ দশমিক ৪৬ শতাংশ এবং বিদেশিদের কাছে ১ দশমিক ৭১ শতাংশ শেয়ার আছে।

ভাগ