বাগেরহাটে জমি দখল নিয়ে হামলায় আহত ৫,আটক ১২

0

 

বাগেরহাট সংবাদদাতা ॥ বাগেরহাটে জমি দখলে নিতে সুশান্ত দাস (৩৮) নামের এক শিক্ষকের বাড়িতে সংঘবদ্ধ হামলা ও মারধরের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার ভোর পাঁচটার দিকে বাগেরহাট সদর উপজেলার কাড়াপাড়া ইউনিয়নের ফুলতলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জীবন বাঁচাতে ওই শিক্ষক ৯৯৯ এ ফোন করেন। এছাড়া হামলার শিকার শিক্ষক পরিবারের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে হামলাকারীদের মধ্যে ১২ জনকে আটক করে। পরবর্তীতে ওই শিক্ষকের মামলায় পুলিশ ওই ১২ জনকে আটক দেখায়।
হামলাকারীদের মারধরে আহত হয়েছেন সুশান্ত দাস, তার সন্তান সম্ভাবা স্ত্রী কনিকা দাস (২৮), ভাই বিশ্বজিত দাস ও শুকদেব দাস এবং নিকট আত্মীয় রিংকি দাস। এদের মধ্যে সুশান্ত দাস ও কনিকা দাস বাগেরহাট জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।
আটককৃতরা হলেন-আছাদুজ্জামান ওরফে টিপু হাওলাদার (৪৫), বেনজীর আহমেদ (৪৯), ফেরদাউস হাওলাদার (৩৩), নূর নবী (২১), হাফিজ হাওলাদার (৪০), আবু হানিফ খান (৩৬), মো. সাকিব ফকির (২০), সাফায়েত মোল্লা (৪১), মাহতাব খান (২৩), আব্দুল গাফফার শেখ (৪৪), মোতালেব খান (৬০) ও শামীম শেখ (১৯)। আসামিদের বাড়ি বাগেরহাটের সদর ও কচুয়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়।
আহত শিক্ষক সুশান্ত দাস বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে আমরা এই বাড়িতে বসবাস করে আসছি। কিন্তু আছাদুজ্জামান ওরফে টিপু হাওলাদার কয়েক বছর ধরে আমাকে জমি থেকে উচ্ছেদের পাঁয়তারা করছে। এর অংশ হিসেবে ২০১৬ সালে ল্যান্ড সার্ভে ট্রাইবুন্যালে রেকর্ড সংশোধনের মামলা করা হয়। সেই মামলা চলমান রয়েছে। কিন্তু ভোররাতে হঠাৎ করে আছাদুজ্জামান ওরফে টিপু হাওলাদারের নেতৃত্বে ১৮-২০ জনের একটি দল আমাদের ওপর হামলা করে। তাদের হামলায় আমি, আমার স্ত্রীসহ পাঁচ জন আহত হয়েছি। হামলাকারীরা ঘরে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার ও বেশকিছু মূল্যবান মালামাল নিয়ে যাই। আমি এই হামলার বিচার চাই।’
বাগেরহাট মডেল থানা পুলিশের ওসি কেএম আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘৯৯৯ এ ফোন পেয়ে অভিযান চালিয়ে আমরা ১২ জনকে আটক করেছি। এই হামলার ঘটনায় ওই শিক্ষক আটক ১২ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৭-৮ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন। পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’

 

 

Lab Scan