স্বল্প টিকা ও কার্ড প্রদানে অনিয়ম যশোরে টিকা না পেয়ে ফিরে গেছেন অনেকে : মানেনি স্বাস্থ্যবিধি

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গতকাল যশোরে পরীক্ষামূলক গণটিকা দেয়ার প্রথম দিনে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়্রেও অনেকে টিকা দিতে পারেননি। চাদিার তুলনায় স্বল্প টিকা সরবরাহ ও চেয়ারম্যান, মেম্বাররা ইচ্ছেমতো কার্ড দেয়ায় তারা নিরাশ হয়ে ফিরে যান।
গতকাল ছিল গণটিকা দেয়ার পরীক্ষামূলক র্কাক্রম। ২৫ বছরে ঊর্দ্ধ নর-নারীদের টিকা দেয়ার দিন। এ দিনে কেন্দ্রের প্রতিটি বুথে ২শ’ জনের জন্যে টিকা সরবরাহ করা হয়। যশোর পৌরসভার কাউন্সিলর, ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের মাধ্যমে টিকা প্রত্যাশীদের মাঝে কার্ড বিতরণ করা হয়। তারা ইচ্ছেমতো কার্ড বিতরণ করেন। এ কার্ড নিয়ে কেন্দ্রে টিকা দিতে আসেন তারা। এর পাশাপাশি শুধুমাত্র জাথীয় পরিচয়পত্র আছে এমন লোকজন এসে কেন্দ্রে ভিড় করেন। এ সময় উসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হলেও স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় সামাজিক দূরত্ব মানেননি অনেকেই। অধিকাংশ কেন্দ্রে ছিল টিকা প্রত্যাশীদের উপচে পড়া ভিড়। বয়স্ক ও মহিলাদের উপস্থিতি ছিল বেশি। সকলের প্রত্যাশা ছিল তারা টিকা নেবেন। কিন্তু অনেকেই টিকা পাননি। স্বাস্থ্য বিভাগ যশোর জেলায় ৫৬ হাজার ৪শ’ টিকা গতকাল মনিবার সকাল ৯টা হতে বিকাল ৪টা পর্যন্ত যশোর পৌরসভাসহ জেলার ৯১টি ইউনিয়নে মোট ১শ’ কেন্দ্রের পরীক্ষামূলক টিকা প্রদান করা হয়। যশোর পৌরসভার ৯টি কেন্দ্রে ৯টি বুথ করা হয়। প্রতি ইউনিয়নে একটি করে ৯১টি কেন্দ্র নির্ধারণ করা হয়। এসব কেন্দ্রে টিকা দেয়ার জন্য বুথ করা হয় ৩টি করে। এভাবে ১শ’টি টিকাদান কেন্দ্রে ২শ’ ৮২টি বুথ করা হয়। প্রতি কেন্দ্রে ২শ’ করে টিকা দেয়া হয়। চেয়ারম্যান-মেম্বারদের দেয়া কার্ড দেখিয়ে লোকজন টিকা নিয়ে যান। অথচ, জাতীয় পরিচয়পত্র সঙ্গে এনেও অনেকে টিকা নিতে পারেননি। এ নিয়ে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। দুপুর ১২টার ভেতর প্রায় সব কেন্দ্রে টিকা দেয়ার কাজ শেষ হয়ে যায়। গতকাল বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে যশোর সদর উপজলোর ৪ নং নওয়াপাড়া ইউনিয়নে পরিষদে ছিল টিকা প্রত্যাশীদের ভিড়। এ সময় শেষ হয়ে যায় ওই কেন্দ্রের ৩টি বুথে দেয়া ৬শ’ টিকা। এ সময় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নাসরিন সুলতানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ ঘটনার সত্যতা স্ববীকার করে বলেন, লোকজনের ভিড় অনেক। কিন্তু কেন্দ্রে ৩টি বুথে টিকা দেয়া হয়েছে ২শ’ করে। এর বেশি লোক হলে তো ফিরে যাবেই। ইউনিয়ন পরিষদের এ কেন্দ্রে যশোরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ তজিমুল ইসলাম খান টিকা প্রদান কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। এ সময় সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহীন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, যশোর প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, স্বাস্থ্য প্রকল্প কর্মকর্তা ডা. আবু সাঈদ, ইউপি চেয়ারম্যান নাসরিন সুলতানা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে জেলা প্রশাসক উপশহর ইউনিয়ন পরিষদ টিকাদান কেন্দ্র উদ্বোধন করেন। যশোর শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে (বিএড কলেজ পৌরসভার টিকা দান কার্যক্রম উদ্বোধন করে মেয়র হায়দার গণী খান পলাশ। সেখানে ঘোপ ৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. মোকসিমুল বারী অপুসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ্য উপস্থিত ছিলেন।
সিভিল সার্জন অফিস সূত্র জানিয়েছেন, গতকাল পরীক্ষামূলক টিকাদান কার্যক্রমে ৫৬ হাজার ৪শ’ ডোজ টিকা দেয়ার কথা থাকলেও ৮শ’ ২২ ডোজ বাড়িয়ে ৫৭ হাজার ২শ’ ২২ ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে। এছাড়া দৈনন্দিন রুটিনের অংশ হিসেবে ১শ’ ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে ২ হাজার ৪শ’ ৩৯ ডোজ। দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেয়া হয়েছে ১শ ৪০ ডোজ।

Lab Scan