ফুলতলায় ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা

0

শামসুল আলম খোকন, ফুলতলা (খুলনা)॥ খুলনার ফুলতলায় মিলন ফকির (৪৫) নামে এক ব্যবসায়ীকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করেছে মোটরসাইকেল আরোহী দুর্বৃত্তরা। এ সময় শীতল কান্তি মন্ডল (৫০) নামে এক স্কুল শিক্ষক আহত হন।  সোমবার সকাল ৮টায় ফুলতলার জামিরা সড়কের আলকা আইডিয়াল স্কুল মোড়ে এ ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত পিস্তলের ৫টি গুলির খোসা উদ্ধার করেছে।
নিহত মিলন নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলার পেড়োলী গ্রামের আঃ ওহাব ফকিরের পুত্র এবং গত চার বছর ধরে ফুলতলা উপজেলা সদরের আলকা পূর্বপাড়ার বাসিন্দা। তার স্ত্রী রাশিদা বেগম (৩৮), পুত্র ফুলতলা রি-ইউনিয়ন স্কুল এন্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির জিসান হোসেন ইমন (২০) ও ৮ম শ্রেণীর রাফিদ হোসেন মিম্মাজ (১৪) এবং কন্যা করিমুন্নেছা স্কুলের এসএসসি পরীক্ষার্থী তাসমিয়া হোসেন মিলি (১৬) রয়েছে।
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী জানান, সোমবার সকাল ৮টার দিকে ফুলতলা উপজেলা সদরের জামিরা রোডের আইডিয়াল স্কুল মোড়ের একটি চায়ের দোকানে মিলন ফকির ও স্কুল শিক্ষক শীতল বিশ্বাস চা পান করছিলেন। এ সময় একটি লাল রঙের পালসার মোটরসাইকেলে দুই জন দুর্বৃত্ত এসে মিলন ফকিরকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। গুলি মিলনের হাতে ও শিক্ষক শীতলের পায়ে লাগে। মিলন দ্রুত দৌঁড়ে পাশে মা টেলিকম এন্ড কনফেকশনারি নামের দোকানের মধ্যে ঢুকে পড়েন। এ সময় একজন দুর্বৃত্ত পেছন পেছন দোকানের মধ্যে ঢুকে তার মাথায় ও পিঠে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে স্থানীয়রা আহত শীতল বিশ্বাসকে উদ্ধার করে প্রথমে ফুলতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। দুপুরে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে স্থানীয় থানা পুলিশ, পুলিশ সুপার মাহাবুব হাসান, গোয়েন্দা পুলিশ, পিবিআই, সিআইডি ও র‌্যাব-৬’র সদস্যরা উপস্থিত হন। দুপুরে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।
মিলনের পারিবারিক সূত্র জানায়, তিনি এদিন ভোর সাড়ে ৫টায় তার বড় ছেলে ফুলতলা রি-ইউনিয়ন স্কুল এন্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র জিসাম হোসেন ইমন ও এক আত্মীয়কে ঢাকার বাসে তুলে দেন। পরে ফজরের নামাজ পড়ে অন্যান্য দিনের মতো হাটাহাটি করে সকাল সাড়ে ৭টার সময় চা খাওয়ার জন্য আইডিয়াল স্কুল মোড়ে যান।
মিলনের স্ত্রী রাশিদা বেগম বলেন, ফুলতলা উপজেলার শিকিরহাট, রানাগাতি ও নড়াইলের কালিয়া উপজেলার পেড়োলী ঘাটের ইজারা নেয়ার জন্য দরপত্র সংগ্রহ করেছিলেন মিলন। খুলনা বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে আজ সোমবার দরপত্র জমা দেয়ার কথা ছিল। গত হাটের দিন ঘাটের বর্তমান ইজারাদার ও সাবেক ইউপি সদস্য মো. আলমগীর হোসেন মোল্যা তাকে একটি মুরগী কিনে দেন এবং শিকিরহাট ঘাটের দরপত্র জমা না দেয়ার জন্য অনুরোধ করেন। এছাড়া গত কয়েকদিন ধরে আলমগীর মোল্যা ও ইউপি সদস্য ফারুক মোল্যা দরপত্র জমা না দেয়ার জন্য মোবাইল ফোনে অনুরোধ জানাতে থাকেন।
নিহতের পিতা আব্দুল ওহাব ফকির বলেন, আমার জানা মতে মিলনের কোন শত্রু ছিল না। ঘাট ইজারাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষরা এ ঘটনা ঘটাতে পারে বলে আমার ধারনা।
অপরদিকে সাবেক ইউপি সদস্য ও শিকিরহাট খেয়াঘাটের ইজারাদার মো. আলমগীর হোসেন মোল্যা বলেন, মিলন তার নিজ এলাকা পেড়োলী খেয়াঘাটের ইজারা নেয়ার জন্য দরপত্র সংগ্রহ করেছেন। আমার জানা মতে তিনি এবার শিকিরহাট খেয়াঘাটের ইজারা নিচ্ছেন না।
প্রত্যক্ষদর্শী মা টেলিকোম কমিউনিকেশন দোকান ঘর মালিক রফিকুল ইসলাম সোহেল জানান, প্রতিদিনের মতো দোকান খুলে কিছু মালামাল সাজাতে থাকি। এ সময় হঠাৎ গুলির শব্দে দেখি মিলন দৌড়ে আমার দোকানের ভিতরে ঢুকে পড়ে। কিছু বুঝে উঠার আগেই দুর্বৃত্তরা কয়েকটি গুলি করে পালিয়ে যায়। সেখানেই তার মৃত্যু হয়।
ফুলতলা থানার ওসি মো. ইলিয়াস তালুকদার বলেন, সংবাদ পেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষসহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। হত্যার প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের চেষ্টা চলছে। পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

 

Lab Scan