প্রেমাবাগে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ ও যুবলীগের নেতাসহ ৭ চাঁদাবাজ আটক, টাকা উদ্ধার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোরের অভয়নগর উপজেলার প্রেমবাগে চাঁদার দাবিতে একটি জ্বালানি তেল কোম্পানির ট্যাংকলরি চালক ও কর্মচারীকে জিম্মি করে রাখার ঘটনায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের দুজন নেতা ও যুবলীগের এক নেতাসহ ৭ জনকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। গত রোববার রাতে প্রেমবাগে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ অফিসে অভিযান চালিয়ে চাঁদার ৩০ হাজার টাকাসহ তাদের হাতেনাতে আটক করা হয়। এ সময় জিম্মি করে রাখা ট্যাংকলরি চালক সুরুজ মিয়া ও কর্মচারী দিদার হোসেনকে স্থানীয় তমা কনস্ট্রাকশন থেকে উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। সোমবার আটক ৭ জনকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এর মধ্যে একজন বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের এক নেতা চাঁদাবাজ আজাদ রহমান আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আটক ৭ চাঁদাবাজ হচ্ছেন-বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের প্রেমবাগ ইউনিয়ন শাখার সভাপতি সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান রানা, সাধারণ সম্পাদক আজাদ রহমান, প্রেমবাগ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সৈয়দ ওয়াহিদুল ইসলাম মিন্টু, প্রেমবাগের মৃত আব্দুল ওয়াদুদের ছেলে মো. মিন্টু, মৃত শামসুর মোল্যার ছেলে জিয়ার মোল্যা, ই¯্রাফিল বিশ্বাসের ছেলে আল আমিন হোসেন এবং গোপালগঞ্জ সদরের চর বয়রা গ্রামের মৃত আবুল কাশেমের ছেলে তমা কনস্ট্রাকশনের গেটম্যান হাবিবুর রহমান। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের সভাপতি অভয়নগর উপজেলার বনগ্রাম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে শিক্ষকতা করেন।
যশোর পুলিশ সুপার কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে সোমবার দুপুরে আয়োজিত এ সংক্রান্ত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌহিদুল বলেন, নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে আলভী ট্রেডার্স নামক একটি কোম্পানি প্রেমবাগের তমা কনস্ট্রাকশনে জ্বালানি তেল (গ্রিন ওয়েল) সরবরাহ করে থাকে। এই গ্রিন ওয়েল রাস্তা মেরামত কাজে ব্যবহৃত রোলারে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু প্রায় এক বছর ধরে রানা গং আলভী ট্রেডার্সের ট্যাংকলরি থেকে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করে আসছে। তমা কনস্ট্রাকশনে জ্বালানি তেল সরবরাহ করতে এলে রানা গংকে আলভী ট্রেডার্সের ট্যাংকলরি প্রতি ৭ হাজার টাকা করে চাঁদা দিতে হয়। প্রতিমাসে আলভী ট্রেডার্স তমা কনস্ট্রাকশনকে ১৫ ট্যাংকলরি জ্বালানি তেল সরবরাহ করে থাকে। এই হিসাব অনুযায়ী রানা গং তাদের কাছ থেকে মাসে ১ লাখ ৫ হাজার টাকা চাঁদা আদায় করে। কিন্তু কিছুদিন চাঁদা দেয়া বন্ধ করে দেওয়ায় রানা গং ক্ষিপ্ত হয়।
তিনি বলেন, গত রোববার বিকেলে আলভী ট্রেডার্সের একটি ট্যাংকলরি (নং-ঢাকা মেট্রো-ট-১৪-৮৭৭৮) তমা কনস্ট্রাকশনে জ্বালানি তেল সরবরাহ করতে এলে রানা গং চালক সুরুজ মিয়া ও কর্মচারী দিদার হোসেনকে গাড়িসহ জিম্মি করে রাখে। এ সময় আলভী ট্রেডার্সের ম্যানেজার আমির হোসেন ইমনের কাছে ১ লাখ ৬০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে রানা গং। পরে বিষয়টি মৌখিকভাবে ডিবি পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন আমির হোসেন ইমন। ফলে ডিবি পুলিশের ওসি মারুফ আহম্মদের নেতৃত্বে একটি টিম রানা গংকে ধরার জন্য ফাঁদ পাতে। এরপর রোববার রাত সাড়ে আটটার দিকে আমির হোসেন ইমন চাঁদার ১ লাখ ৬০ হাজার টাকার মধ্যে ৩০ হাজার টাকা রানা গংকে দেওয়ার জন্য তাদের অফিসে যান। এ সময় চাঁদার টাকা নেওয়ার সময় ডিবি পুলিশ সেখানে হানা দিয়ে সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান রানাসহ ৭ চাঁদাবাজকে হাতেনাতে আটক করে। ওই অফিসে আলভী ট্রেডার্সের কাছ থেকে চাঁদা নেওয়ার কয়েকটি প্রমাণপত্রও উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। এ ঘটনায় অভয়নগর থানায় মামলা করেছেন ম্যানেজার আমির হোসেন ইমন। প্রেস ব্রিফিংয়ে অন্যান্যের মধ্যে ডিবি পুলিশের ওসি মারুফ আহম্মদ, ডিআই-ওয়ান মসিউর রহমান, পুলিশ ইনসপেক্টর সোমেন দাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ডিবি পুলিশের একটি সূত্র জানায়, প্রেমবাগে স্কুল মার্কেটে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের ওই অফিস। রানা গং এই অফিসকে ব্যবহার করে আলভী ট্রেডার্স থেকে এ পর্যন্ত ৯ লাখ ১০ হাজার টাকা চাঁদা নিয়েছে। সূত্র জানায়, আটক হাবিবুর রহমান তমা কনস্ট্রাকশনের গেটম্যান। মূলত তিনি রানা গংয়ের হয়ে কাজ করেন। আলভী ট্রেডার্সের কোন ট্যাংকলরি সেখানে এলে এ খবর হাবিবুর রহমান রানা গংকে পৌঁছে দেন। এদিকে ডিবি পুলিশের এসআই মফিজুল ইসলাম জানান, আটক ৭ চাঁদাবাজকে তারা সোমবার আদালতে সোপর্দ করেছেন। এর মধ্যে আজাদ রহমান আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন। জুুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সাইফুদ্দিন হোসাইন তার জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। আটক অন্য ৬ আসামিকেও কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

ভাগ