‘পরিকল্পিতভাবে ঘটানো হচ্ছে পুঁজিবাজারে ধস’

লোকসমাজ ডেস্ক॥ ক্রেতার তুলনায় বিক্রেতা কম থাকায় এখন আর শুধু মন্দ কোম্পানির শেয়ার কমছে না। বরং বাজারের সবচেয়ে ভালো কোম্পানি যেমন স্কয়ার ফার্মা, গ্রামীণফোন, ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো অব বাংলাদেশ (বেটবিসি) এবং রেনেটা কোম্পানির শেয়ারের দাম কমছে আশঙ্কাজনক হারে। যা পুঁজিবাজারের ইতিহাসে সবচেয়ে কম দামে শেয়ার।
তারপরও ব্যক্তি, প্রাতিষ্ঠানিক এবং বিদেশি বিনিয়োগকারীরা শেয়ার কেনার পরিবর্তে বিক্রি করে পুঁজিবাজার ছাড়াছেন। তারা বলছেন, ‘এখন বাজারে বিনিয়োগ করলেই লোকসান’। আর তাতে বাজারে আস্থা ও তারল্য সংকট ২০১০ সালের ধসের চেয়ে বড় ধসে রূপ নিয়েছে।
একটি পক্ষ পরিকল্পতিভাবে বাজারের এই পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে বলে মনে করছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।
সংস্থাটির মতে, এই পক্ষটি নিজের স্বার্থ হাসিলের জন্য ‘অর্গানাইজ ওয়েতে’ (পরিকল্পিতভাবে) বাজারটাকে ধংস করার চেষ্টা করছে।
এই চক্রটি সুযোগ থাকার পর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোকে বিনিয়োগ করা থেকে বিরত রেখেছে। বাজারে ক্রান্তিকালে সার্পোট দেয়ার জন্য সঠিক ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদশেকে (আইসিবি) নিষ্ক্রিয় করে রেখেছে। পুঁজিবাজারে টাকা বাজারে বিনিয়োগ না করে অন্যখাতে বিনিয়োগ করছে।
শুধু তাই নয়, কর সুবিধা নেয়ার পর চীনা কনসোটিয়ামের কাছে শেয়ার বিক্রির টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছে না শেয়ারহোল্ডারা। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের নিষ্ক্রিয় রেখেছে। আর নিজের স্বার্থ হাসিলের জন্য কমিশনের ওপর সব দায় দিচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ক্ষেপিয়ে তুলছে।
বাজার পর্যালোচনায় দেখা গেছে, টানা পাঁচ কার্যদিবস সূচক পতন হয়েছে। তাতে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৩৪টির, কমেছে ৩১০টির, অপরিবর্তিত ছিল ১৩টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। আর তাতে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স সূচক ২৬১ পয়েন্ট কমে ৪ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএস-৩০ সূচক ৬৩ পয়েন্ট কমে ৯৪৫ পয়েন্ট এবং ডিএসইএস সূচক ৯৯ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৪০৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।
বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম ও সূচক কমায় ডিএসইর বিনিয়োগকারীদের মূলধন কমেছে ১৭ হাজার ১৬১ কোটি ১ লাখ ৫৩ হাজার ৭৪৮টাকা। একই অবস্থা চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই)। সেখানে বিনিয়োগকারীদের মূলধন কমেছে ১৫ হাজার ৯৪০ কোটি ৬৭ লাখ টাকা।
বিদায়ী সপ্তাহে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ৫৭৭ কোটি ১২ লাখ ৯৬ হাজার ৮৪টাকা। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৩০২ কোটি ৮৯ লাখ ৪০ হাজার ৭৩১টাকা। গড় লেনদেনের পরিমাণ ১০ কোটি টাকা করে কমে ৩১৫ কোটি টাকার দাঁড়িয়েছে। এর আগের সপ্তাহে ১২৫ কোটি গড়ে লেনদেন হয়েছে।
অপর পুঁজিবাজার সিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানিরগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৩৭টির, কমেছে ২৪৭টির আর কমেছে ৮টি কোম্পানির শেয়ারের। বেশির ভাগ শেয়ারের দাম কমায় সিএসইর প্রধান সূচক ৭৭৬ পয়েন্ট কমে ১২ হাজার ৭৬৮ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। তাতে লেনদেন হয়েছে ৬৫ কোটি ১২ লাখ ৩৮ হাজার ১৩৫ টাকা।
সার্বিক বিষয় বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক খায়রুল হোসেন বলেন, উত্থান-পতন পুঁজিবাজারের স্বাভাবিক নিয়ম। কিন্তু এখন পুঁজিবাজারে যা হচ্ছে তা কোনো ভাবেই কাম্য নয়। একটি গ্রুপ ‘অগানাইজড ওয়েতে’ বাজার চালাচ্ছে।
এই চক্রের কারণে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে ব্যাংকগুলোর এক্সপোজার লিমিট ২৫ শতাংশ থাকলেও, ব্যাংকগুলো বিনিয়োগ করছে না। ব্যাংকগুলোর ইচ্ছা করলেই অন্তত ১০ শতাংশ বিনিয়োগ করতে পারবে। তার কারণ পুঁজিবাজারে ব্যাংকগুলোর বিনিয়োগ রয়েছে ১২-১৪ শতাংশ পর্যন্ত। ব্যাংকগুলোর পুঁজিবাজারে ২৫-৩০ শতাংশ লেনদেনে অবদান রাখে। কিন্তু এখন ইতিবাচক কোনো অবদান রাখছে না।
সবাই বলছে বাজারে এই মুহূর্তে নতুন ফান্ড প্রয়োজন উল্লেখ করে খায়রুল হোসেন বলেন, ক্রান্তিকালে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য আইসিবিকে ১৩ হাজার কোটি টাকার ফান্ড দেয়া হয়ে। কিন্তু আইসিবি সেগুলো বিনিয়োগ করছে অন্যখাতে। আর তা দেখে বিদেশিরা বাজার ছেড়ে চলে যাচ্ছে।তিনি বলেন, বাজারের ইন্টারমেডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলোর কেউ পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছে না। তাই বাজার ভালো হচ্ছে।
ডিএসইর তথ্য মতে, নতুন বছরের শুরুদিন স্কয়ার ফার্মা কোম্পানির শেয়ারের দাম ছিল ১৮৮ দশমিক ৭ টাকা। ৯ জানুয়ারি সেই কোম্পানির শেয়ারে লেনদেন হয়েছে ১৭০ টাকায়।একইভাবে গ্রামীণফোনে দাম ছিলো ২৮১ টাকা। সর্বশেষ দিন লেনদনে হয়েছে ২৫০ টাকায়।
এছাড়াও পহেলা জানুয়ারি রেটেনার শেয়ার দাম ছিলো ১ হাজার ৯০ টাকা। ৯ জানুয়ারি সেই কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ২৬ টাকায়। এইভাবেই বিনিয়োগকারীদের পথে বসানো হচ্ছে।

ভাগ