নিমপাতার ঝাড়ফুকে রোগের চিকিৎসা!

0

 

বাগেরহাট সংবাদদাতা॥ বাগেরহাটে নিম পাতার ঝাড়ফুক ও স্বপ্নে পাওয়া পরমর্শে ক্যান্সারসহ সব ধরণের জটিল রোগের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন আব্দুল মুকিত নামের এক ব্যক্তি। সপ্তাহের প্রতি শনি ও মঙ্গলবার রাতে চিকিৎসা সেবা পেতে বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েকশ মানুষ আসেন কবিরাজের কাছে। ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করে চিকিৎসা সেবা নিয়ে গন্তব্যে ফেরেন তারা। মুকিতের চিকিৎসায় রোগ থেকে মুক্তি ও ভোগান্তি দুই ধরনেরই কথা রয়েছে এলাকায়। স্বাস্থ্য বিভাগ বলছে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে খোঁজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
কবিরাজ আব্দুল মুকিত (৫৫) বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার বলভদ্রপুর গ্রামের বাসিন্দা। এক মেয়ে ও স্ত্রী রয়েছে তার। বছর তিনেক আগে হার্ট অ্যাটাক করে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। দীর্ঘদিন চিকিৎসা নেয়ার পরে বছর খানেক আগে সুস্থ হয়ে যান। ৮ মাস আগে থেকে এলাকার লোকজনকে ঝারফুক দেওয়া শুরু করেন। বর্তমানে ক্যান্সার, প্যারালাইসিস, পাইল্স, স্ট্রোক, মাজা ব্যথা, বাত-ব্যথা, জন্ডিস, হাপানিসহ সব ধরনের চিকিৎসা দেন তিনি। প্রতি শনিবার ও মঙ্গলবার রাতে তার নিজের বাড়ির অদূরে লক্ষিকান্ত মন্ডলের বাড়িতে বসে চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকেন। তার চিকিৎসা নিতে দূরদুরান্ত থেকে লোক আসেন প্রতিনিয়ত।
শনিবার রাতে কবিরাজের বাড়ি মোরেলগঞ্জ উপজেলার বলভদ্রপুর গ্রামে লক্ষিকান্তের বাড়িতে গিয়ে শতাধিক নারী-পুরুষের ভীড় দেখা যায়। ছোট একটি ঘরে থালার উপর মোমবাতি জালানো, শরীরে ছোঁয়ায়ে সেই থালায় ৫ টাকা থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত রাখছেন লোকজন। সেই ঘরের পরেই আরেক ঘরে প্লাস্টিকের চেয়ারে বসে নিমপাতা দিয়ে রোগীদের ঝারফুক ও পরামর্শ দিচ্ছেন কবিরাজ আব্দুল মুকিত। বেশির ভাগ রোগীকে পথ্য হিসেবে কালোজিরা, সরিষার তেল ও মধু খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। ভাল হলে জানাতে বলছেন। দীর্ঘ অপেক্ষার পরে সেবা পেয়ে খুশি হয়ে বের হয়ে গন্তব্যে রওনা দিচ্ছেন তারা।
চিকিৎসার প্রক্রিয়া সম্পর্কে কবিরাজ আব্দুল মুকিত বলেন, আমি খুব অসুস্থ ছিলাম। প্রায় দুই যুগ আগে বিয়ে করলেও কোন বাচ্চা হত না আমার। দুই বছর আগে আল্লা আমাকে একটি সন্তান দিয়েছেন। বছর খানেক আগে রাতে ঘুমের ঘোরে কেউ একজন এসে আমাকে বলেন তুই সুস্থ হয়ে যাবি। লাঠি ফেলে দে, তোর কাছে যারা আসবে তারাও সুস্থ হবে। তুই চিকিৎসা সেবা দেয়া শুরু কর। তারপর থেকে আমি নিজেও সুস্থ হয়ে যাই, আর মানুষদেরও চিকিৎসা দেয়া শুরু করি।
চিকিৎসা পদ্ধতি ও ফি সম্পর্কে মুকিত বলেন, আমি কারও কাছ থেকে কোন টাকা নেই না। যার যা ইচ্ছে, সামনে একটা থালা রাখা আছে সেই থালা রেখে যায়। এটা দিয়ে এই বাড়ির বিদ্যুৎ বিলসহ অন্যান্য ব্যয় বহন করা হয়। আমি কখনও এই টাকা ভোগ করি না।
মুকিতের কাছে চিকিৎসা নিতে যাওয়া কচুয়া উপজেলার ভান্ডাকোলা গ্রামের ভ্যানচালক রবিউল ইসলাম বলেন, আমার হাঁটু ফুলে উঠেছিল, অনেক চিকিৎসা করিয়েও যখন ভাল হইনি তখন এখানে আসি। এখানে আসার পরে ভাল হয়েছি।
অঞ্জলী নারী নামের এক নারী বলেন, আমার এবং আমার মেয়ের শরীরে সমস্যা ছিল। এখানে এসে ভাল হয়েছি।
তব আব্দুল মুকিত কোন চিকৎসক না চিকিৎসার নামে প্রতারণা করছেন বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় বেশকিছু লোক।
স্থানীয় জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, মুকিত নিজেই অসুস্থ। সে এখনও ওষুধ খায়। আর তার কাছে শ শ লোক আসছে। এটা কোন ধরনের প্রতারণা তা বলার ভাষা আমাদের নেই।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যক্তি বলেন, এই চিকিৎসাসেবাকে কেন্দ্র করে ৪০ সদস্যের একটি কমিটি রয়েছে। এই কমিটিতে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ প্রভাবশালীরা রয়েছেন। এই চিকিৎসাসেবা দিয়ে যে টাকা আয় হয় সেই টাকা তারা ভাগ করে নেন। মুকিত তেমন কিছু পান না।
মোরেলগঞ্জ উপজেলার বনগ্রাম ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি স্বপন কুমার মুখার্জী বলেন, মুকিত ফকির যে চিকিৎসনা দিচ্ছে তা স্পষ্ট অপচিকিৎসা। বনগ্রাম ইউনিয়নের ৬ নং (বলভদ্রপুর) ওয়ার্ড সদস্য প্রদীপ মজুমদার বলেন, আমরা যতদূর জানি মুকিতের কাছে লোকজন ভাল হয়। কিভাবে সে চিকিৎসা দেয়, তা সে জানে। আমরা অন্যকিছু জানি না।

বাগেরহাট সিভিল সার্জন ডা. জালাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, বিষয়টি আমাদের জানা নেই। খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 

Lab Scan