নকল সোনা প্রতারকচক্রের দুই সদস্য আটক

0

 

স্টাফ রিপোর্টার ॥ খুলনার হরিণটানা এলাকায় গত রোববার দিবাগত রাতে অভিযান চালিয়ে নকল সোনা প্রতারকচক্রের দুই সদস্যকে আটক করেছে যশোরের ডিবি পুলিশ। কেশবপুরে নকল সোনা প্রতারণার দুটি ঘটনায় তাদেরকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে সোনা সদৃশ পিতলের পয়সা, চিরকুট, সোনার আংটি ও নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।
আটক প্রতারকচক্রের সদস্যরা হলেন, খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার আংগারদহ গ্রামের ফারুক মীরের ছেলে বর্তমানে লবনচরার নিজখামার পিঁপড়ামারী এলাকার বাসিন্দা টগর মীর ওরফে বাবু (২৮) ও বটিয়াঘাটা উপজেলার শান্তিনগর (জলমা) এলাকার আব্দুস সোবহানের ছেলে আলমগীর হোসেন (৪০)।  ডিবি পুলিশের এসআই মফিজুল ইসলাম জানান, গত ৮ ও ২৭ অক্টোবর কেশবপুরের পৃথক স্থানে ভ্যানচালক সেজে প্রতারকচক্রের সদস্য পথে সোনার বার ও চিঠি কুড়িয়ে পেয়েছেন বলে প্রতারণা করে দুই নারী যাত্রীর কাছ থেকে কৌশলে স্বর্ণালঙ্কার হাতিয়ে নেয়। ভুক্তভোগী নারীরা হলেন, মণিরামপুর উপজেলার ফেদাইপুর গ্রামের সিদ্দিকুর রহমানের স্ত্রী আসমা বেগম ও কেশবপুর উপজেলার আলতাপোল গ্রামের হারাধন আঢ্যর স্ত্রী লতিকা আঢ্য। এ ঘটনায় কেশবপুর থানায় পৃথক মামলা হলে জড়িত অপরাধীদের শনাক্ত ও আটকে মাঠে নামে ডিবি পুলিশ। এক পর্যায়ে তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে ও গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত রোববার দিবাগত রাতে খুলনার হরিণটানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে নকল সোনা প্রতারকচক্রের দুই সদস্য টগর মীর ওরফে বাবু এবং আলমগীর হোসেনকে আটক করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে সোনা সদৃশ পিতলের পয়সা, চিরকুট, সোনার আংটি ও নগদ ২৬ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়। আটকের পর সোমবার দুই জনকে যশোরের আদালতে সোপর্দ করা হলে এর মধ্যে টগর মীর ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তারা এ ধরনের বেশ কয়েকটি ঘটনার সাথে জড়িত বলে জবানবন্দিতে জানিয়েছেন।

 

Lab Scan