দেবাশীষ রায় অলোকের বিদ্যা বিকাশ কেন্দ্র

0

সেলিম হায়দার, তালা (সাতক্ষীরা) ॥ সাতক্ষীরার তালা উপজেলার খেশরা ইউনিয়নের শাহাজাতপুর গ্রামের একটি প্রত্যন্ত অঞ্চল পুন্ডুলিকপাড়া। এই অঞ্চলটি শিক্ষা ও যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই অনুন্নত। এই অঞ্চলের শিক্ষা, যোগাযোগ ও পরিবেশ উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা রেখে চলেছেন এখানকার আলো -বাতাসে বেড়ে উঠা দেবাশীষ রায় অলোক। শিক্ষার প্রসারের জন্যে গড়ে তুলেছেন শিশু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘বিদ্যা বিকাশ কেন্দ্র’। প্রতিনিয়ত পরিষ্কার ও সংস্কার করে চলেছেন এলাকার রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। তিনি সাহাজাতপুর গ্রামের নীলমণি রায়ের ছেলে।
রোববার সরেজমিনে দেখা যায়, পুন্ডলিকপাড়ার প্রায় ২ কিলোমিটার গ্রাম্য রাস্তা নিজ হাতে পরিষ্কার করছেন। নিজ উদ্যোগে তিনি সব রাস্তা চলাচলের উপযোগী করতে বালি ও মাটি দিয়ে সংস্কার করছেন। এলাকার প্রতিটি মন্দির প্রাঙ্গনও খুবই পরিষ্কার- পরিচ্ছন্ন।
এলাকার সাধারণ মানুষকে সাথে নিয়ে দরিদ্র ও অসহায় ছেলে -মেয়েদের শিক্ষা বিস্তারের বিনা বেতনে পাঠদান করে চলেছেন তিনি। শুরুতেই উপযুক্ত জায়গা না থাকায় গাছতলায় পাঠদান শুরু করেন তিনি। লেখাপড়া ছাড়াও অভিনয়, গান, আবৃত্তি ও উপস্থাপনা, ছবি আঁকা শেখানোর মাধ্যমে শিশুদের সাথে তার গড়ে উঠেছে গভীর সম্পর্ক।
কাজের সন্ধানে বিভিন্ন জায়গায় কাজ করলেও মন টেকেনি তার। তাই এলাকার ছেলে- মেয়েদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে ফিরে এসে ২০২০ সালে গ্রামে গড়ে তোলেন শিশু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান “বিদ্যা বিকাশ কেন্দ্র”। স্বীয় ধর্মের মানুষের পূজা অর্চনার জন্যে গড়ে তোলেন সার্বজনীন শিব-দুর্গা-রাম মন্দির।
দেবাশীষ রায় অলোক বলেন, এক সময় আমাদের এপাড়া খুবই অবহেলিত ছিল। এ অঞ্চলের বাচ্চারা লেখাপড়ায় অনেক পিছিয়ে। আমি শহরে শিক্ষকতা করেছি। এলাকায় ফিরে ছেলেমেয়ের নৈতিক ও ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত করে এই অঞ্চলের বাচ্চাদের এগিয়ে নিতে চেষ্টা করে যাচ্ছি। সে কারণে এই প্রত্যন্ত অঞ্চলে এলাকার জনগণকে সাথে নিয়ে গড়ে তুলেছি বিদ্যা বিকাশ কেন্দ্র। শিক্ষার প্রসারের জন্যে নিজ অর্থায়নে ৩ জন শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছি। তাদের সাথে নিয়ে ঝরেপড়া শিশুদের শিক্ষা দিয়ে চলেছি। এলাকার শিক্ষিতের হার শতভাগ করতে কাজ করে চলেছি। তবে আর্থিক অসচ্ছলতার কারণে ঠিকভাবে কার্যক্রম চালাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।
খেশরার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এস এম লিয়াকত হোসেন বলেন, নানামুখী প্রতিভার অধিকারী এই অলোক। দক্ষিণ শাহজাদপুর গ্রামের পুন্ডলিকপাড়ার ছেলেমেয়েদের মাঝে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে চলেছেন এবং রাস্তাঘাট নিজহাতে পরিষ্কার -পরিছন্ন, বয়স্কদেরও শিক্ষার ব্যবস্থা করে চলেছেন তিনি। এমন আলোকিত মানুষ প্রতিটি গ্রামে থাকলে সমাজ ও পরিবেশ সুন্দর হতো।
বিদ্যা বিকাশ কেন্দ্রের সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএম ফজলুল হক বলেন, আমাদের পত্যন্ত অঞ্চলে বিদ্যা বিকাশ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে চলেছেন ছোটভাই অলক। এটি আসলেই মহৎ কাজ। এই প্রতিষ্ঠানটি টিকিয়ে রাখার জন্যে সকলে মিলে চেষ্টা করছি।

 

Lab Scan