দায়িত্ব পালনে চিকিৎসকদের পুরস্কার, অবহেলায় শাস্তি: প্রধানমন্ত্রী

লোকসমাজ ডেস্ক॥ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কভিড-নাইনটিনে আক্রান্ত রোগীদের সেবাদানকারী চিকিৎসক ও নার্সদের পুরস্কৃত করা হবে বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি দায়িত্বে অবহেলায় শাস্তির কথা বলেন। দেশের করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ১৫টি জেলার প্রশাসনিক কর্মকর্তা এবং জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ভিডিও কনফারেন্স করেন তিনি। সেখানে এই কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী জানান, যারা চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে তাদের তালিকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উৎসাহের পাশাপাশি সঙ্গে বিশেষ সম্মানি দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মার্চ মাস থেকে যারা কভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধ করছেন, আমি তাদের পুরস্কৃত করতে চাই।’ আরও জানান, চিকিৎসা সেবাদানকারী, আইনশৃংখলা, সশস্ত্রবাহিনী ও অন্যদের জন্য বিশেষ ইন্সুরেন্সের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। দায়িত্ব পালনকালে কেউ করোনা আক্রান্ত হলে সরকার চিকিৎসার দায়িত্ব নেবে ও স্বাস্থ্যবীমা (৫ থেকে ১০ লাখ) করা হবে। প্রয়োজনীয় েেত্র বীমা পাঁচগুণ বাড়ানো হবে। এ দিকে যারা দায়িত্বে অবহেলা করেছেন তাদের কঠোর সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। বিশেষ করে হাসপাতালে হাসপাতালে ঘুরেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রের চিকিৎসা না পেয়ে মৃত্যুর ঘটনাটি দুবার উল্লেখ করেন। এ সময় তিনি চিকিৎসা দিতে না চাওয়া চিকিৎসকদের নাম জানতে চান। তাদের শাস্তি দেওয়ার কথাও বলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর যারা পালিয়ে আছেন, তারা এই প্রণোদনা পাবেন না। ভবিষ্যতে তারা ডাক্তারি করতে পারবেন কিনা, সে চিন্তাও করতে হবে। কেউ যদি এখন কাজে আসতে চান, তবে তিন মাস কাজ দেখে তাদের কথা চিন্তা করা হবে। কাউকে শর্ত দিয়ে কাজে আনবেন না তিনি। প্রয়োজনে বাইরে থেকে ডাক্তার ও নার্স আনা হবে। এপ্রিল মাসের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে বলেন সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। এতে মানুষের তি কম হবে। এ ছাড়া যারা খাদ্য বা সাহায্যের জন্য অন্যের কাছে হাত পাততে পারেন না তাদের তালিকা করে ঘরে ঘরে সাহায্য পৌঁছে দেওয়ার আহ্বান জানান সংশ্লিষ্টদের। পাশাপাশি যারা গ্রামে আছেন তারা যেন জমি ও জলাভূমি কাজে লাগিয়ে খাদ্য উৎপাদন করেন সেই আহ্বানও জানান। তিনি বলেন, সবাইকে মানবিকভাবে এগিয়ে আসতে হবে। মানুষের জন্য মানুষ। মানবিকতা নিয়ে এগোতে হবে।জাতির পিতার ডাকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশ স্বাধীন হয়েছে। ঐক্যের মূল্য আছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনা ঠেকাতে জানুয়ারি থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সংক্রমণ আস্তে আস্তে বাড়ছে। তবে সরকারের ব্যবস্থাপনা ও সবার সম্মিলিত প্রয়াসের কারণে অন্য দেশের মতো বাড়েনি। আশা করেন সামনেও মোকাবিলা করতে পারবেন। তিনি ঝুঁকি নিয়ে কাজ করায় সরকারি চিকিৎসক ও নার্সদের ধন্যবাদ জানান। মাঠ প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলাবাহিনী ও ত্রাণের সঙ্গে জড়িত সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ দেন।

ভাগ