দখলে রাখা সিট থেকে নামিয়ে দেয়ায় রাবির জিয়া হলে ছাত্রলীগের তালা

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শহীদ জিয়াউর রহমান হলের সিট থেকে অনাবাসিক কর্মীদের নামিয়ে দিয়ে আবাসিক ছাত্র তোলায় হল গেটে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ করেছে ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর একটা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত তারা বিক্ষোভ করেন। তবে সংগঠনের নেতা কর্মীরা দাবি করেছেন, ডাইনিংয়ের খাবারে ‘কটন বাড’ পাওয়ায় তারা বিভিন্ন দাবিতে ‘সাধারণ শিক্ষার্থীদের’ সঙ্গে আন্দোলন করেছেন। এ সময় তারা হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবি জানান। দুপুর ১টার দিকে হলের ডাইনিংয়ের খাবারে কটন বাড পাওয়ার অভিযোগে হলের গেটে তালা লাগিয়ে হল শাখা ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা বিক্ষোভ শুরু করেন। পরে সেখানে ধীরে ধীরে অন্যান্য হলের নেতা কর্মীরা জড়ো হতে থাকেন। এ সময় তারা হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগের দাবি জানিয়ে সেøাগান দেন। কিন্তু কার খাবারে কটন বাড পাওয়া গেছে সেখানে তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এ দিকে ডাইনিংয়ের একাধিক কর্মচারী দাবি করেছেন খাবারে এ রকম কিছু পাওয়া যায়নি।
উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া হলে সিট বরাদ্দের নোটিশ প্রকাশ করেছে হল প্রশাসন। এতে অনেক অনাবাসিক ছাত্রলীগ কর্মীর কক্ষে নতুন করে সাধারণ ছাত্রদের সিট বরাদ্দ দেওয়া হয়। পরবর্তীতে গত কয়েক দিন থেকে হল প্রশাসন প্রতিটি কক্ষে গিয়ে অনাবাসিক ছাত্রলীগ কর্মীদের নামিয়ে নতুন আবাসিক ছাত্রদের তুলে দেন। এ নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ রয়েছে।পরে বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে ঘটনাস্থলে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া উপস্থিত হন। বিকেল চারটায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও হল প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনায় বসেন ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা। সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-উপদেষ্টা মো. তারেক নূর, প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক, শহীদ জিয়াউর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ সুজন সেন, শাখা ছাত্রলীগের সভাপতিসহ একটি প্রতিনিধিদল উপস্থিত ছিলেন। এ সময় হল প্রাধ্যক্ষের কক্ষে আলোচনাকালে বাইরে থেকে ছাত্রলীগ নেতাদের উঁচু স্বরে কথা বলতে শোনা যায়।
আলোচনা শেষে প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক বলেন, শিক্ষার্থীরা তাদের দাবিগুলো জানিয়েছে। আমরা এই নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে সমাধান করব। ছাত্রলীগের সিট বরাদ্দের বিষয়ে তিনি বলেন, সিট বরাদ্দ নিয়ে কিছু ঝামেলা হয়েছে। এ গুলো রিভাইসড করে ঠিক করা হবে। ছাত্রলীগ সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আগামী রবিবার বৈঠক হবে। সেখানে বিষয়টি সমাধান করা হবে।
ছাত্রলীগ সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ছাত্ররা হলের ডাইনিংয়ে খাবার মান বৃদ্ধি, ওয়াইফাই প্রবলেম, খেলোয়াড়দের সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আন্দোলন করছিলেন। জিয়াউর রহমান হল ছাত্রলীগ তাদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন সেখানে আমাকে ডাকলে আমি বৈঠকে বসি। বৈঠকের বিষয়গুলো নিয়ে কথা হয়। যদি দৃশ্যমান কোনো উন্নয়ন না হয় তবে সে ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা যদি গেটে তালা লাগিয়ে দেয় তবে ছাত্রলীগ যৌক্তিক আন্দোলন হিসেবে তার সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করবে। সিট বরাদ্দের বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা এটি নিয়ে পরে আলোচনা করেছি। তবে কোনো সমাধান হয়নি। আগামী রবিবার বৈঠকে হবে প্রশাসনের সঙ্গে। সুযোগ-সুবিধার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।সার্বিক বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ সুজন সেন বলেন, তারা বেশ কিছু দাবি জানিয়েছে। আগামী রবিবার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক রয়েছে সেখানে বিষয়টি সমাধান হবে।

 

Lab Scan