ডুমুরিয়ায় পাউবো’র বাঁধ ভেঙে লোনাপানি ঢুকে বোরো আবাদ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা

ডুমুরিয়া (খুলনা) সংবাদদাতা ॥ খুলনার ডুমুরিয়ায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) বেড়িবাঁধ ভেঙে লোনাপানি ঢুকে চলতি মৌসুমে বোরো আবাদ ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। উপজেলার কৈয়া বাজার থেকে শরাফপুর অভিমুখী ২৯ নম্বর পোল্ডারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধের ৪টি পয়েন্টে ছিদ্র হয়ে লবণপানি প্রবেশ করছে। এতে ওই পোল্ডারের আওতায় প্রায় অর্ধশত একর আবাদি জমিতে বোরো চাষ হুমকির মুখে পড়েছে। ফলে ওই এলাকার কৃষকরা চলতি বছরে বোরো আবাদ করতে পারবেন কিনা এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। অপরদিকে সদ্য দেখা দেয়া ছিদ্রগুলো বন্ধ করা না হলে বড় ধরনের গোগায় পরিণত হয়ে জনবহুল সড়ক ধসে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বলছেন, শীঘ্রই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সরেজমিনে গিয়ে ইউপি সদস্য বনমালী মন্ডল, কৃষক সুভাষ চন্দ্র রায়, আইয়ুব বিশ্বাস, নিতাই রায়সহ অনেকের সাথে কথা বলে জানা যায়, কৈয়া বাজার থেকে উপজেলার শরাফপুর বাজার অভিমুখে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধের তেলিখালী স্লুইস গেটের দু পাশ ও তেলিখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উত্তর ও দক্ষিণ পাশ মিলে মোট ৪টি ছিদ্র হয়েছে। প্রায় ১৫দিন হল ওই ছিদ্র দিয়ে লবণপানি ওয়াপদার ভিতরে ঢুকে প্রায় অর্ধশত একর আবাদি জমি লবণপানিবন্দি হয়ে পড়েছে। যা বোরো চাষের জন্য ব্যাপক হুমকি হয়ে পড়েছে। চলতি মৌসুমে আমরা বোরো আবাদ করতে পারবো কি পারবো না এ নিয়ে দারুন দুশ্চিন্তায় আছি। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবহিত করা হয়েছে। এ নিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হিমাংশু বিশ্বাস জানান, এ ঘটনা জানার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং পরিষদের অর্থায়নে দ্রুত গোগা বন্ধের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. শাহানাজ বেগম বলেন, বিষয়টি নলেজে রয়েছে। তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বলা হয়েছে। কথা হয় পানি উন্নয়ন বোর্ড খুলনার উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. মিজানুর রহমান ও এস ও রাশেদুজ্জামানের সাথে। তারা উভয়েই এ প্রতিবেদককে বলেন, স্থানীয় কয়েকজন কৃষক বেড়িবাঁধের বাইরে পাউবোর জায়গা খনন করে লবণপানি তুলে মাছ চাষ করে আসছেন। যে কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তাদের পাউবোর জায়গা ছেড়ে দিতে বলা হয়েছে। ছেড়ে না দিলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভাগ