টস জিতে বোলিং: দ. আফ্রিকা অবাক, অনিশ্চয়তায় ছিল বাংলাদেশ!

0

লোকসমাজ ডেস্ক॥ উইকেটে ছিল সবুজ ঘাস। ডারবানের উইকেটে চিরাচরিত গতি ও বাউন্স পাওয়া যাবে তা অনুমিত ছিল। আবহাওয়া ছিল মেঘাচ্ছন্ন। তাই টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিতে বিন্দুমাত্র চিন্তা করেননি মুমিনুল হক। তবে ভাবনায় ছিল আরেকটি ইস্যু। এমন উইকেটে শুরুর আক্রমণ সামলাতে আত্মবিশ্বাসী নন ব্যাটসম্যানরা! আত্মবিশ্বাস নড়বড়ে! জয়, সাদমান, শান্তরা দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম টেস্ট খেলতে নামছেন। তাদেরকে কঠিন পরীক্ষায় ফেলতে রাজি নন কোচিং স্টাফ এবং সিনিয়র ক্রিকেটাররা। তবে তিন পেসার তাসকিন, ইবাদত ও খালেদকে নিয়ে আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশ। নতুন বলে তারা ভালো কিছু করবেন এমন বিশ্বাস ছিল গোটা দলে। এজন্য মহা গুরুত্বপূর্ণ টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ৫০তম টেস্ট খেলতে নামা মুমিনুল হক। তবে বাংলাদেশের এমন সিদ্ধান্তে পুরো হতবাক দক্ষিণ আফ্রিকা।
দুই দলের প্রথম টেস্ট ডারবানে আজ শুরু হয়েছে। মুমিনুল টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিলেও তিন পেসার শুরুতে সুবিধা করতে পারেননি। ধারহীন বোলিং, নির্বিষ আক্রমণ, অগোছালো পরিকল্পনায় শুরু হয় বোলারদের লড়াই। ২৫ ওভারের প্রথম সেশনে প্রোটিয়াদের রান বিনা উইকেটে ৯৫। বাংলাদেশের বোলাররা এ সময়ে মেডেন নিতে পারে মাত্র ২টি। তবে প্রথম সেশনের পর বোলাররা দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ান। আলোর স্বল্পতায় আগেভাগে খেলা শেষ করার আগে দক্ষিণ আফ্রিকার রান ৪ উইকেটে ২৩৩। দিন শেষে দুই দলের লড়াইয়ে ডমিঙ্গো তৃপ্ত। তবে শুরুর অনিশ্চয়তা ছিল তা বলতে দ্বিধা করেননি বাংলাদেশের কোচ, ‘ডারবানের গতিময় ও বাউন্স উইকেটে ব্যাটিং নিয়ে কিছুটা অনিশ্চয়তা ছিল। তবে আমাদের কোচিং প্যানেল ও সিনিয়র খেলোয়াড়রা এই অনিশ্চয়তা দূর করার উপায় পেয়েছিলাম। ব্যাটিংয়ের থেকে বোলিংয়ে আমরা আত্মবিশ্বাসী ছিলাম। আমরা আমাদের সিদ্ধান্তে বিশ্বাস রেখেছিলাম। শেষ দশ বছরে এখানে ব্যাটসম্যানরা ৫৮/৪২ শতাংশ সুবিধা পেয়েছে। এটা খুব বেশি নয় কিন্তু।’
‘দিনের শুরুতে আবহাওয়া মেঘাচ্ছন্ন ছিল। কিন্তু খেলাটা ত্রিশ মিনিটেরও বেশি সময় পিছিয়ে যায়। তাতে মেঘও সরে যায়। আমরা পরিকল্পনামতো সেই সুবিধা গ্রহণ করতে পারিনি। আমি মনে করি বিদেশি কন্ডিশনে ব্যাটিংয়ে কিছুটা আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি রয়েছে।’ ‘দেখুন জয়, সাদমান ও শান্তদের মতো তরুণ রয়েছে। যারা এখানে প্রথমবার টেস্ট খেলছে। কঠিন উইকেটে সামনে থেকে লড়াইয়ের জন্য আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে হবে।’ প্রোটিয়াদের হয়ে আজ অভিষেক হয়েছে ব্যাটসম্যান রিকলটনের। ২১ রানের বেশি করতে পারেননি বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন দিন শেষে। সেখানে টস নিয়ে প্রশ্নের জবাবে রিকলটন বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে প্রচণ্ড অবাক হয়েছিলাম। ডারবানে সচরাচর সবাই ব্যাটিং-ই নেয়। উইকেট এখানে পরতে পরতে পরিবর্তন হয়। আমরা টসে জিতলে অবশ্যই ব্যাটিং করতাম। অনেকেই বলছে, ডারবানে কখনো এমন উইকেট কেউ দেখেনি…এজন্য হয়তো বাংলাদেশ বোলিং নিয়েছে। তারা হয়তো তিন জন সিমারের থেকে বড় কিছুর প্রত্যাশায় ছিল। আমরা ব্যাটিং পেয়ে খুশি।’

Lab Scan