জুট মিল চালু ও বকেয়া পাওনা পরিশোধ সহ ৬ দফা দাবিতে শিরোমনিতে বেসরকারী জুট মিল শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ

0

শেখ বদরউদ্দিন, ফুলবাড়ীগেট(খুলনা)॥ শিরোমণি শিল্পাঞ্চলের ব্যক্তিমালিকানাধীন বন্ধকৃত মহসেন, জুট স্পিনার্স সহ সকল মিল চালু ও বকেয়া পাওনা পরিশোধের দাবীতে রবিবার সকাল ১১ টায় বেসরকারী পাট, সুতা বস্ত্রকল শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন ও ক্ষতিগ্রস্থ বেসরকারী জুট মিলের বীর মুক্তিযোদ্ধা শ্রমিকদের উদ্যোগে পালিত হয়। সকাল থেকে বিভিন্ন জুট মিলের শ্রমিকরা শিরোমনি হুগলী বিস্কুট কোম্পানী শ্রমিক ইউনিয়নের সামনে জড়ো হতে থাকে, সকাল পৌণে ১১ টার সময় মহসেন জুট মিলের শ্রমিকরা একটি বিশাল মিছিল নিয়ে সেখানে পৌছানোর পরে সকল শ্রমিক একত্রিত হয়ে মিছিল সহকারে খুলনা যশোর মহাসড়কে উঠতে গেলে খানজাহান আলী আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের সামনে বিপুল সংখ্যক পুলিশ শ্রমিকদের মিছিলের সামনে ব্যারিকেড দেয়। এ সময় শ্রমিকরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে এবং সেখানে অবস্থান নিয়ে স্লোগান দিতে থাকে, এসময় সেখানে আতংকের সৃষ্টি হয়,আশপাশের দোকানাপাট বন্দ হয়ে যায় এছাড়া খানজাহান আলী থানা রোডে যানবাহন চলাচল বন্দ হয়ে যায় এবং তিব্র জানযটের সৃষ্টি হয়। শ্রমিকরা সেখানেই বেলা ১২ টা পর্যন্ত অবস্থান নিয়ে কর্মসূচি পালন করেন। বেসরকারি পাট, সুতা, বস্ত্রকল শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি শেখ আমজাদ হোসেনের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের প্রচার সম্পাদক সাইফুল্লাহ তারেকের পরিচালনায় এ সময় বক্তারা বলেন শ্রমিকরে দাবি আদায়ে আমরা পুর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ি আমাদের কর্মসূচি শান্তিপুর্নভাবে পালন করতে চেয়েছিলাম, কিন্তু প্রশাসন আমাদেরকে ব্যারিকেড দিয়েছে, শ্রমিক নেতারা বলেন ত্রি পক্ষিয় বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুয়ায়ি শ্রমিকের পাওনা পরিশোধ এর আগ পর্যন্ত মিল থেকে কোন মালামাল বের হবেনা তারপরও মিলের মালামাল রাতের আধারে বের করা হচ্ছে তখন পুলিশ প্রশাসন ব্যারিকেড দেইনা কেন ? জুট স্পিনার্স মিলের মালিক ত্রি পক্ষিয় বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ি গত ৩০ ডিসেম্ভর এর মধ্যে মিল চালু ও শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ করতে চেয়েছিলো মিল কতৃপক্ষ তা বাস্তবায়ন করেনি, মহসেন জুট মিলের শ্রমিকরা ৮ বছর অতিবাহিত হলেও তাদের চুড়ান্ত পাওনা আজও পায়নি, শিরোমনি হুগলী বিস্কুট কোম্পনীর শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ না করে কারখানা বন্দ রেখেছে কতৃপক্ষ। শ্রমিকরা ধুকে ধুকে না মরার চেয়ে একবারেই মরতে চায় এ সময় বিভিন্ন মিল মালিকের সাথে যে সকল শ্রমিক নেতারা আতাত করে চলছে তাদেরও তিব্র সমলোচনা করেন বক্তারা। আগামি ১৩ জানুয়ারির ভিতর শ্রমিকদের সমস্যা সমাধান করা না হলে ১৪ জানুয়ারি শুক্রবার শিরোমনি শহীদ মিনারে শ্রমিক জনসভা থেকে লাগাতার রাজপথ অবরোধ কর্মসূচি ঘোষনা করা হবে বলেও হুশিয়ারী উচ্চারন করেন শ্রমিক নেতারা। এসময় বক্তৃতা করেন সংগঠনের সাধারন সম্পাদক গোলাম রসুল খান, খানজাহান আলী থানা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার স.ম রেজওয়ান আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্বারী আসহাব উদ্দীন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ইজ্ঞিল কাজী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহাতাব উদ্দিন, খানজাহান আলী থানা ওয়াকার্স পাটির সাধারন সম্পাদক আঃ সাত্তার মোল্লা, মোঃ সেকেন্দার আলী, লিয়াকত মুন্সি, নিজামউদ্দীন, মোঃ কাবিল হোসেন, ওবায়দুর রহমান, ইকবাল বিশ্বাস, শাহ মনিরুল ইসলাম, কাগজী ইকরাম হোসেন, আসাদুজ্জামান (আশা), ৩৪ নং ওয়ার্ড শ্রমিকলীগের সাধারন সম্পাদক শেখ মোঃ ইকবাল হোসেন, মীর আনছার আলী, আবু তালেব, হাশেম গাজী, মোঃ আল মামুন গাজী, মেহেদী হাসান, মোঃ কেসমত আলী, আলাউদ্দিন, মোঃ সোলায়মান, খায়রুল আলম, সবুর, আলম, আঃ রশিদ, হাছান, আতাউর,আবুল কাশেম, আবুল হোসেন, মোঃ চান মিয়া, হুগলী বিস্কুট শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি কাজী মোস্তাফিজুর রহমান, সাধারন সম্পাদক মোঃ ফরহাদ মোড়ল, মোঃ ই্য়াসিন আলী, মোঃ হাফিজ, জয়, মোঃ জিন্নাহ, আলি হামযা প্রমুখ।

Lab Scan