চৌগাছায় হামলায় আহত মুক্তার হোসেনের মৃত্যু

এম এ রহিম চৌগাছা (যশোর)॥ যশোরের চৌগাছায় জমি নিয়ে দ্বন্দে প্রতিপরে হামলায় আহত মুক্তার হোসেন ড্রাইভার (৫৫) মারা গেছেন। শুক্রবার ভোরে তিনি ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। তিনি উপজেলার মশিউরনগর গ্রামের মৃত জাহাবক্সের ছেলে। তার এ মৃত্যু সংবাদে এলাকায় শোকের মামত বইছে। এ ঘটনায় নিহতের চাচা মহিউদ্দীন বাদী হয়ে ৯ জনকে আসামী করে চৌগাছা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ এ মামলার আসামী একই গ্রামের আক্কাচ আলীর ছেলে জসিম উদ্দীন (২০) ও আলমগীর হোসেন (২৪) আটক করে জেল হাযতে পাঠিয়েছেন।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, উপজেলার মশিউরনগর গ্রামের মুক্তার হোসেন ও তার চাচাত ভাইদের দীর্ঘদিন ধরে জমা-জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। গত ৩০ মার্চ সোমবার সকালে মুক্তার হোসেন তার জমিতে কাজ করছিলেন। এ সময় ঐ জমিতে কাজে বাঁধা দেন প্রতিপ চাচাত ভায়েরা। বাঁধার এক পর্যায়ে উভয়ের মধ্যে বাকবিদন্ডা শুরু হয়। এ সময় তারা বাঁশের লাঠি, কোদাল, রড নিয়ে সংঘষে জড়িয়ে পড়ে। পতিপক্ষ আনিছুর রহমান, মিজান, শরিফুল, রিংকু, জনি, আরিফ, তারিখ, আলমগীর ও জসিম হামলা করে। হামলায় আহত হন জমির মালিক আব্দুল মান্নান (৫২), মুক্তার হোসেন (৫৫), ভাই মিন্টু (৪২) ইয়াকুব আলী (৫২) ও ছেলে শিমুল হোসেন (৩০)। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে চৌগাছা মডেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিন্তু আহত আব্দুল মান্নান, মুক্তার হোসেন ও ইয়াকুব আলীর অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদেরকে যশোর সদর হাসপাতালে রেফার করেন। বৃহ¯পতিবার দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মুক্তার হোসেনের অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকায় রেফার করা হয়। আজ শুক্রবার ভোরে তিনি ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধিন অবস্থায় মারা যান।
স্থানীয় ইউপি মেম্বর জামাল হোসেন বলেন, জমি-জমা নিয়ে দ্বন্দে এ ঘটনা ঘটেছে। মুক্তার হোসেন পেশায় পরিবহন চালক। করোনা ভাইসের কারনে গাড়ী চলাচল বন্ধ হওয়ায় সে বাড়ীতে অবস্থান করছিলেন। এ মামলার তদন্ত কারী কর্মকর্তা চৌগাছা থানার এস আই রাজেশ কুমার দাস বলেন, ইতিমধ্যে আমরা দুই জন আসামীকে আটক করেছি। বাকী আসামীরা পলাতক রয়েছে। তাদেরকে আটক করতে এলাকায় পুলিশের অভিযান অব্যহত রয়েছে। এ ব্যাপারে থানার ওসি রিফাত খান রাজিব বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। তিনি বলেন মামলার অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

ভাগ