চৌগাছায় জাতীয় পতাকা বিক্রি করে স্কুল শিক্ষার্থীর আয়

0

এম এ রহিম, চৌগাছা (যশোর)॥ যশোরের চৌগাছায় সংসারে চালানোর জন্যে হাট-বাজার ও পথে- প্রান্তরে জাতীয় পতাকা বিক্রি করে এক স্কুল শিক্ষার্থী। নাম তার আশরাফ আলী। বয়স মাত্র ১২ বছর। ৫ম শ্রেণির একজন নিয়মিত শিক্ষার্থী সে। সে মুন্সিগঞ্জ জেলার লোহজং উপজেলার দক্ষিণ হলুদিয়া গ্রামের সেলিম শেখের ছেলে। পিতা সেলিম শেখ পেশায় একজন দর্জি। তিনিও পতাকা বিক্রি করেন। প্রতি বছরের মত এবারও বিজয়ের মাসে বাড়তি আয়ের জন্যে পতাকা বিক্রি করছে আশরাফ। পিতা- ছেলে মিলে বৃহত্তম যশোর জেলার কয়েকটি উপজেলা ঘুরে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত জাতীয় পতাকা বিক্রি করেন তারা। তারা জেলার বিভিন্ন হাট বাজারসহ পথে-প্রান্তরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পায়ে হেঁটে ফেরি করে জাতীয় পতাকা বিক্রি করেন।

শুক্রবার বিকেলে চৌগাছা শহরের কামিল মাদ্রাসা গেট এলাকায় পতাকা বিক্রি করার সময় কথা হয় আশরাফ আলীর সাথে। এ সময় আশরাফ আলী জানায়, সে লোহজং উপজেলার দক্ষিণ হলুদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ শ্রেণির একজন নিয়মিত শিক্ষার্থী। শ্রেণিতে ৫৫ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে তার রোল ১০। ২০২৩ সালে ৫ম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা দিয়েছে। ১৬ ডিসেম্বরের পরে বাড়িতে গিয়ে ২০২৪ শিক্ষাবর্ষে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হবে। আশরাফ আলী জানায়, তিন ভাই বোনের মধ্যে সে সবার বড়। পিতার অভাব-অনটনের সংসারে বাড়তি আয়ের জন্যে তিন বছর ধরে বিজয়ের মাসে পতাকা বিক্রি করছে সে। এ বছর তার পিতা চুয়াডাঙ্গা শহরে পতাকা বিক্রি করছেন। আর সে বিক্রি করছে যশোরের চৌগাছায়। বিক্রি শেষে রাতে পিতার পূর্ব পরিচিত শহরের একটি হোটেলে রাত্রি যাপন করে সে।
বছরের ১১ মাস লেখাপড়া করলেও বিজয়ের মাস ডিসেম্বর আসলে এই সময়টাতে বাড়তি আয়ের উৎস হিসেবে বিজয়ের মাসে জাতীয় পতাকা বিক্রি করে সে।

শহরের ব্যবসায়ী আব্দুল মুন্নাফ কালু মিয়া বলেন, সারা বছর এদের দেখা না মিললেও বিজয়ের মাসে তাদের দেখা মেলে।

Lab Scan