চৌগাছায় আ.লীগ নেতার বাসায় ডিবির অভিযান

0

এম এ রহিম চৌগাছা (যশোর)॥ যশোরের চৌগাছায় আওয়ামীলীগ নেতা জসিম উদ্দীনের বাসায় অভিযান চালিয়েছেন জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সদস্যরা। রাতভর অবস্থানের পরে শুক্রবার সকালে শহরের চৌগাছা-যশোর সড়ক সংলগ্ন ফারহানা টাওয়ারে তল্লাশি করেছেন। জসিম উদ্দীন উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্য নির্বাহী সদস্য ও উপজেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি।
জানা যায়, বৃহ¯পতিবার রাত ১১ টা থেকে শুক্রবার সকাল ৮ টা পর্যন্ত ডিবির সদস্যরা ফারহানা টাওয়ার ঘেরাও করে রাখেন। সকালে স্থানীয়দের উপস্থিতিতে বাড়িতে প্রবেশ করে তল্লাশি চালানো হয়েছে। ডিবির সদস্যরা জানিয়েছেন একটি ডাকাতি মামলার তদন্তের ব্যাপারে অভিযান চালানো হয়েছে। কিন্তু বাড়ির লোকজন ডিবির কাজে অসহযোগীতা করেছেন। তারা গেট না খোলার কারণে সারা রাত বাসার চারিদিকে অবস্থান করেন। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বৃহ¯পতিবার আনুমানিক রাত ১১ টার দিকে ডিবির সদস্যরা পৌর শহরের সরকারি খাদ্যগুদামের সামনে জসিম উদ্দীনের বাড়িতে আসেন। এরপর তারা বাড়িটির চারপাশে অবস্থান নেন। এ সময় তার বাসায় প্রবেশের চেষ্টা করেন। কিন্তু বাসার গেট না খোলার কারনে বাসায় প্রবেশ করতে ব্যর্থ হন। সকালে জসিম উদ্দীনের শ্বশুর ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম ও চৌগাছা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির নেতাদের উপস্থিতিতে বাসায় প্রবেশকরেন ডিবির সদস্যরা। বাসার ছাদ ও ভিতরে তারা তল্লাশি করেন। ডিবির পক্ষ থেকে জানানো হয় বাসায় তল্লাশি করে জসিম উদ্দীনকে পাওয়া যায়নি। তল্লাশির কারন জানতে চাইলে ডিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়, আন্তঃজেলা ডাকাতদলের এক সদস্যের ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে জসিম উদ্দীন আসামি হয়েছেন।
এ ব্যাপারে জসিম উদ্দীনের স্ত্রী ফারাহানা ইসলাম ময়না জানান, রাতে সাদা পোশাকধারী কয়েকজন ডিবি পরিচয় দিয়ে বাসায় প্রবেশ করতে চাইলে বাসায় কেউ না থাকার কারণে দরজা খুলিনি। এছাড়া তারা সার্চ ওয়ারেন্ট দেখাতে পারেননি।
এ ব্যাপারে যশোর জেলা গেয়োন্দা শাখা ডিবির ওসি রুপন কুমার সরকার জানান, জেলা গোয়েন্দা শাখার অভিযানে অতিসম্প্রতি যশোরের বাঘারপাড়ার একটি রোড ডাকাতি মামলায় আটজনকে গ্রেপ্তার করেছি। তাদের মধ্যে এক আসামি ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে জসিম উদ্দীনের নাম উল্লেখ করেছেন। তিনি বাড়িতে নেই এই কথাটি আমাদেরকে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়নি। যার কারণে অভিযানের জন্য সারারাত অবস্থান করতে হয়েছে।

Lab Scan