চুড়ামনকাটির বর্তমান ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের পাল্টাপাল্টি মামলা থানায় রেকর্ড

0

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন দফাদার ও সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুন্না গ্রুপের মধ্যে গত ২৬ জানুয়ারি পাল্টাপাল্টি হামলার ঘটনায় মঙ্গলবার ( ৭ মার্চ ) কোতয়ালি থানায় পৃথক মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এর আগে দাউদ হোসেন দফাদার ও আব্দুল মান্নান মুন্না আদালতে পৃথক মামলা করেছিলেন। আদালতের আদেশে কোতয়ালি থানায় তাদের অভিযোগ পৃথক মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়। তবে দুই মামলার কোনো আসামিকে এখনো পর্যন্ত আটক করা হয়নি।
চুড়ামনকাটির বর্তমান চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন দফাদারের দায়ের করা মামলায় সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুন্নাসহ ২৮ জনকে আসামি করা হয়েছে। অপর আসামিরা হলেন, আব্দুল মান্নান মুন্নার ছেলে ছাতিয়ানতলা গ্রামের বাসিন্দা আওয়াল হোসেন, ভাই আব্দুল হান্নান, হুমার হোসেনের ছেলে হিমেল, আসাব আলীর ছেলে মোজাম উদ্দিন, হোসেন আলী ও হাসান আলী, আলী বক্স ম-লের ছেলে মহিদুল ইসলাম, হেদায়েত উদ্দিন মন্ডলের ছেলে আক্তার হোসেন, চুড়ামনকাটি গ্রামের আসকার কবিরাজের ছেলে ইছাহাক আলী, পুকুর বাগডাঙ্গা গ্রামের মৃত ইউসুফ আলীর ছেলে শহিদুল ইসলাম, আসাফ আলী সরদারের ছেলে ইউনুছ আলী, হজরত আলীর ছেলে কোরবান আলী, বাগডাঙ্গা বিশ্বাসপাড়ার আব্দুল মুজিদের ছেলে মনিরুল ইসলাম, বাগডাঙ্গা পালপাড়ার মৃত আক্কারে পালের ছেলে অতুল পাল, বাগডাঙ্গা গ্রামের মোজে মোল্লার ছেলে আব্দুল মুজিদ, সাজিয়ালী গ্রামের মৃত ইমান আলীর ছেলে হযরত আলী, চুড়ামনকাটি দাসপাড়ার অজিত দাসের ছেলে অসীম দাস, আব্দুলপুর গ্রামের গোপাল গোসাইয়ের ছেলে তপন দাস, রাম দাস, জিতেন দাসের ছেলে উত্তম দাস, দুলাল দাসের ছেলে রতন দাস, গোপাল দাসের ছেলে ভরত দাস, কার্তিক দাসের ছেলে দুধু চান, তপন দাসের ছেলে সুমন দাস, মৃত গোলাম বিশ্বাসের ছেলে আমির হামজা, বদর উদ্দিন ম-লের ছেলে আবুল হোসেন মন্ডল  মল্লিকের ছেলে মহাসীন আলী।
অপরদিকে চুড়ামনকাটির সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মান্নান মুনার দায়ের করা মামলায় বর্তমান চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন দফাদারসহ ১৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। অন্য আসামিরা হলেন, ছাতিয়ানতলা গ্রামের বাসিন্দা ইউপি চেয়ারম্যান দাউদ হোসেন দফাদারের ৩ ছেলে তানভির হাসান রক্সি, জাকির হোসেন ও রাসেল, আবুল হোসেনের ছেলে টিপু, মোংলার ছেলে টিপু, শহিদ ড্রাইভারের ছেলে সুমন, আনতার দফাদারের ৩ ছেলে আশরাফ, হাফিজুর ও ইনছার আলী, মৃত বারিক দফাদরের ২ ছেলে দিপু ও লিপু, বাগডাঙ্গা গ্রামের মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে আমিরুল, আব্দুলপুর গ্রামের আব্বাস ম-লের ছেলে আনিচ, আব্দুর রহমানের ছেলে আব্দুল আলিম, ক্ষিতিবদিয়া গ্রামের মৃত রওশন আলীর ছেলে আব্দুর রাজ্জাক ও লাল্টুর ছেলে হাফিজুর।
দুই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোতয়ালি থানা পুলিশের ইন্সপেক্টর (অপারেশনস) বিএম আলমগীর হোসেন জানান, তিনি মামলার তদন্তকাজ শুরু করেছেন। তবে এখনো পর্যন্ত কাউকে আটক করা হয়নি।

Lab Scan